| 23 মে 2024
Categories
ছড়া সংখ্যা ২০২২

দুটি ছড়া । চন্দনকৃষ্ণ পাল

আনুমানিক পঠনকাল: < 1 মিনিট
 
 
চলছে বৈশাখি মেলা
 
বটের তলে নদীর পাড়ে বসেছে আজ মেলা
সকাল থেকে সন্ধে-বিকেল কেমনে গেলো বেলা।
কাঁচের চুড়ি নানান বাঁশি গুড়-জিলিপি-মোয়া
কিছুটা তাপ, সবুজ পাতা আকাশ নীলে ধোয়া।
বুকের মাঝে বাজলো বাঁশি সারাটা দিন ধরে
চললো মেলা দিনের বেলা মনটা থাকে ঘরে?
সবাই মিলে আকাশ নীলে উড়ছি যেনো ঠিক
উড়ে বেড়াই ঘুরে বেড়াই ঠিক থাকে না দিক।
মেলার মাঠে নদীর ঘাটে বটের তলে যাই
বন্ধুরা সব হাঁটতে থাকি দারুণ মজা পাই।
কেউ কিনছে চিড়ার মোয়া জিলিপি নিই কেউ
আনন্দে আজ উড়ছে ঘুড়ি বুকে নদীর ঢেউ।
বছর জুড়ে আশায় থাকি আসছে মেলা এই
দৌড়ে বেড়াই আনন্দ পাই নাচি তো ধেই ধেই।
বাজছে বাঁশি চলছে হাসি চলছে হট্টগোল
বাঁদর নাচে মজাই আছে বাজছে দেখি ঢোল।
ঢোলের বোলে প্রাণটা খুলে নাচছে শিশু এক
কী আনন্দ সবার মনে দেখ তাকিয়ে দেখ।
নাগরদোলা চলছে মাঠে চলছে তো সারকাস
চলছে বেচা নিত্যদিনের দরকারি বেত-বাঁশ।
খেলনাপাতি রঙিনবাতি কাঠেরও আসবাব
গরিব-দুখি সবাই সুখি এসেছে মেমসাব।
মেমসাবের ক্যামেরাটায় শব্দ ওঠে ক্লিক
তার পিছনে শিশুর দলে হাসছে তো ফিকফিক।
কী আনন্দ কী আনন্দ আকাশ বাতাস জুড়ে
এ বৈশাখির মেলার মাঠ আজ ভাসছে কতো সুরে।
 
চলছে মেলা চলছে খেলা তুমিও এসো প্রিয়
তোমার যতো বন্ধু শতো তাদের বার্তা দিও।
 
 
 
 
 
 
 
চৈত্র শেষে নববর্ষ
 
গতকাল ছিলো চৈত্রের শেষ
আজ শুরু বৈশাখের
চলছে মেলা দুদিন থেকে
চলছে বাজনা ঢাকের।
 
পার্বতী-শিব নাচে গানে
জমিয়ে দিলেন পাড়া
ঢাকের বোলে ছন্দ তুলে
পড়লো গ্রামে সাড়া।
 
চিড়ার মোয়া আর জিলাপি
সেরা খাবার মেলায়
সারা বিকেল কেটে গেলো
সার্কাসেরই খেলায়।
 
বাজারে আজ গনেশ পূজা
হালখাতা কই তারে
বাংলা নববর্ষ আসে
প্রতি বছর দ্বারে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: সর্বসত্ব সংরক্ষিত