| 22 ফেব্রুয়ারি 2024
Categories
কবিতা সাহিত্য

একগুচ্ছ কবিতা । মানিক বৈরাগী

আনুমানিক পঠনকাল: < 1 মিনিট

ক্ষুধা তুই বেঁচে থাক পরম যত্নে


ক্ষুধার অরণ্যে ভোগ পাখি কিচির মিচির করছে
সুবেহ সাদেক চলছে,আর ক্ষণ পর প্রভাত আসবে
ক্ষুধার বার্তা নিয়ে ততক্ষণে মরে যাবে নাড়ী ভুঁড়ি
যারক রসে কিল বিল করা কৃমি-পোকা হজম।
তবুও
ক্ষুধা তুই বেঁচে  থাক পরম যত্নে
শিরদাঁড়া সোজা রাখ গৌরভের গাম্ভীর্যে।

 


ইলহামের আশায়

ঘুর্ণি হাওয়ার মতো উড়ে আসে বিরহ
শিলাস্তরের মতো জামাট বাঁধে মেঘ
বিজলির থেকে ঠাড়াল পড়ে মাঠেঘাটে
তবুও নিদ্রিত হয়না চোখ।

বিরহ – বিজনে পাই না মনে ইলহামের ডাক
সখি সরে যাও অন্যখানে অন্যজনে
আশেকে ইলাহীর ইলহাম আসুক
তৃষ্ণার্ত  কলবে।

 



দলদাস নই মুক্তবাক

কোন কিছুতেই নেই তবে আছি আত্মচেতনায় নিজেই এখন নিজের নই,নই আর দলদাস যারা গিয়েছে আলো হাতে বেঁচে আছে আজো কর্তার হুকুম তামিলেই ব্যস্থ দাস, দিন করে পার ।

“আমি যদি হই জলদাস তুমি জলদাসি”

মাহিনের ঘোড়ার চারণভুমি হলে তুমিই  আমার চরণ দাসি।

ধর্মদাসেরা প্রাণভিক্ষা পেতে কত তোড়-জোড় আজরাইল পানে
পরাস্থনয় বিচারালয়ের এজলাশে প্রাণ বাঁচাতে ভোগের লাগি গতর খাটে দলের তরে।

নই পাহলোয়ান দলদাস, তরবারি মতাদর্শের মুক্তবাক আমি
অস্থি-মজ্জায় লড়াই করে যুগ যুগ বাঁচি।

 

 


মেঘ ঝরে অশ্রুর মতো

অত:পর মেঘও ঝরে যায় অশ্রুর মতো
আকাশ মুক্ত হয়, মানুষেরা হাসে ফুলের মতো।

আমার মেঘেরা প্রতিদিন শিলাস্তরে জমাট বাঁধে
গহীনের অতলান্তে
বৃষ্টির বীজ বুনবো বলে হৃদজমিনে লাঙ্গল চালাই
অথচ
তুমি শাদা মেঘের জ্যোৎস্না বিলাও
কাশবনে বিজন অরণ্যে।

 

error: সর্বসত্ব সংরক্ষিত