এই প্রাসাদে কাজ করে না মাধ্যাকর্ষণ

নবাবের শহর লখনউ তার ঐতিহাসিক পশরার ডালি সাজিয়ে যেন বসে আছে আপনারই অপেক্ষায়। নবাবি আমল থেকে সিপাহী বিদ্রোহ, একের পর এক ঐতিহাসিক নিদর্শন আপনাকে মুগ্ধ করবেই। সঙ্গে উপরি পাওয়া হিসেবে আছে লখনউ চিকনের কাজ এবং অবশ্যই লখনউ-এর বিরিয়ানি। কিন্তু এ সবের বাইরেও আরও আকর্ষণ আছে লখনউয়ে। জানেন কি? 

লখনউয়ে আছে এমন একটি প্রাসাদ, যা মাধ্যাকর্ষণ শক্তি মানে না। শুনতে অদ্ভ‌ুত লাগলেও এটাই সত্যি। বড়া ইমামবরা সত্যি সত্যি মাধ্যাকর্ষণ শক্তি কাজ করে না। চতুর্থ নবাব বরাক ইমামবড়া আসফ-উদ-দৌলা এই প্রাসাদটি নির্মাণ করিয়েছিলেন। আরব এবং ইওরোপের নির্মাণশৈলী দেখা যায় এখানে। ১৭৮৪ সালে তৈরি বড়া ইমামবরার সেন্ট্রাল হলটি দৈর্ঘ্যে ৫০ মিটার এবং উচ্চতায় তিন তলা বাড়ির সমান। কিন্তু কোনও বিম বা পিলার ছাড়াই কয়েকশো বছর ধরে দাঁড়িয়ে আছে এটি। তাই বলা যেতে পারে যে এখানে মাধ্যাকর্ষণ শক্তি তার স্বাভাবিক নিয়মে কাজ করে না। 

বলা হয় যে এর ছাদে পৌঁছনের ১০২৪টি পথ রয়েছে। কিন্তু ফিরে আসার মাত্র একটিই রাস্তা আছে। এছাড়াও বড়া ইমামবরায় রয়েছে ভুলভুলাইয়া। কোনও গাইড ছাড়া এখানে ঢুকে আবার পথ চিনে বেরিয়ে আসা সত্যিই দুষ্কর। 

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত