| 16 এপ্রিল 2024
Categories
এই দিনে কবিতা সাহিত্য

একগুচ্ছ কবিতা

আনুমানিক পঠনকাল: 5 মিনিট

ওবায়েদ আকাশের জন্ম ১৯৭৩ সালের ১৩ জুন, বাংলাদেশের রাজবাড়ী জেলার সুলতানপুর গ্রামে। একাডেমিক পড়াশোনা বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে স্নাতকোত্তর। পেশা সাংবাদিকতা। বর্তমানে দেশের ঐতিহ্যবাহী পত্রিকা দৈনিক সংবাদ-এ সহকারী সম্পাদক হিসেবে কর্মরত আছেন। কবি,সম্পাদক ওবায়েদ আকাশের জন্মতিথিতে ইরাবতী পরিবার জানায় শুভেচ্ছা ও নিরন্তর শুভকামনা।


কান্না উঠে আসে

আল্পনার মতো কদমগাছ
তুমি দেখে বিস্মিত হবে

এইমাত্র আমার হাড়ের উপর দিয়ে
হেঁটে গেল একদল নিসর্গ প্রেমিক

তাদের হাতে কুকুরের লেজে স্বনির্মিত ফাঁসি
যা কিছু অপ্রার্থিত এখনই ঝুলিয়ে দেবে

আমি একদিন ইটের ওপর থেকে মাথা নামিয়ে
ফুটপাথে ঘুমিয়ে পড়েছিলাম
আর ভুলে গিয়েছিলাম স্ত্রীপুত্র বিবাগী সংসারের কথা

বাবাজি লোকনাথ আমাকে বুঝিয়ে সুঝিয়ে
গৃহে নিয়ে এলে
সে কী আলোর রক্ত গুঞ্জরিত হতে দেখি ঘরময়

আমি এখন বাঁশঝাড়ের নিভৃতি থেকে প্রতিদিন
সংসারের হাত-পাগুলো কেটে কেটে এনে
নরম কাদার ভেতর ঢুকিয়ে রাখি

প্রবল বর্ষণে বাড়ির চারপাশ দিয়ে ভেসে ওঠে
প্রিয়তমার ভেজা শাড়ি, অসমাপ্ত হাসি…

ভেজা ভেজা শরীরের দিকে তাকানো যায় না
হু হু করে কান্না উঠে আসে

 

 

Irabotee.com,irabotee,sounak dutta,ইরাবতী.কম,copy righted by irabotee.com

 

 

দোদুল্যমানতা

গরম ভাতের ভেতর বাঁশবনের লুকানো ছায়া
একটু একটু করে বাড়ছে

একদিন গরমভাত খেতে গিয়ে আমি সত্যিকারের
তিরস্কৃত হয়েছিলাম
ভাতের ওপর লাফ দিয়ে চড়ে বসেছিল শর্তহীন দুঃসাশন
কাঁচা মাছ, কাঁচা সবজি, লাল ছাগলের শিংওয়ালা মাথা

আমি ঘণ্টার পর ঘণ্টা ক্ষুধা নিবৃত্তির জন্য
উনুন থেকে পরিপাক অবধি অসংখ্য পিঁপড়ের সারি
দুপায়ে মারিয়ে দিয়েছি

অনন্ত কাল ধরে জ্বলছে যে চুলা
আমরা তার নিতান্ত দর্শক ব্যতীত নিকটাত্মীয় নই

আমাদের একদিকে ক্ষুধা অন্যদিকে অগাধ মমতা
মধ্যপ্রাচ্যের রাখাল কিংবা নির্মাণ শ্রমিকের মতো
সম্মুখে সদা দোদুল্যমানতা

 

 

Irabotee.com,irabotee,sounak dutta,ইরাবতী.কম,copy righted by irabotee.com

 

 

বিবিধ পদ্ধতি

তুমি চিৎকার করে মা-বোনের বয়সের দিকে হামলে পড়েছ
অথচ সন্তর্পণে বলা আছে– তোমার একুশ বছর বয়সের কথা

জ্ঞানের ভেতর কি মানুষের গরিমা থাকে?
এই প্রশ্নে আমি বারবার তারুণ্যের সাহায্য প্রার্থনা করেছি

আজকাল খোলা ছাদে বৃষ্টির ভেতর ঘুমিয়ে পড়লে
বজ্রপাতে মৃতের সংবাদ
রাতারাতি চাউর হয়ে যায়

তুমি আলগোছে দুহাত দিয়ে ছুঁয়ে দেখো আমার মুখ
আমার সৈনিক জীবন তাতে বিমূঢ় হতে থাকে

তবু আমি প্রতিদিন বজ্রপাত উনুনে রেখে
তোমার সঙ্গে দেখা করতে আসি

একদিন আমার ছোট্ট সন্তান বিদ্যুতের গায়ে হাত দিতেই
তোমার মাতৃস্নেহ জেগে উঠেছিল

কেঁপে উঠেছিল তোমার অপরিণত বয়স আর
প্রতিদিনের সাবধান হওয়ার বিবিধ পদ্ধতি

 

 

Irabotee.com,irabotee,sounak dutta,ইরাবতী.কম,copy righted by irabotee.com

 

 

প্রসঙ্গ নদী

আজকাল নদীর ভেতর খাবার খাদ্য ব্যবহার সামগ্রী নিয়ে
তোমার আমার জন্য ভীষণভাবে ভাবছ–

ভাবছ যে একদা খরস্রোতা নদীতে হাঙর কুমির
কত কিছুই না খেলা করত বিষয়ী মানুষের মুখশ্রী নিয়ে

আজকাল বর্ষান্তে নদীর ফাটল নিয়ে আমি
নদী গবেষণায় একপ্রকার পত্র লিখেছি:

মান্যবরেষু:
১.
নদীর ফাটল থেকে যে সমস্ত মাছ উঠে আসছে
তার দৈর্ঘ্যপ্রস্থ আন্দাজের একপ্রকার জলযন্ত্র আবিষ্কার করুণ

২.
নদী থেকে বিলুপ্ত মাছের কঙ্গালের নিচে
যে সমস্ত সোনার সংসার বিলুপ্ত হয়ে গেছে
প্রতিটি নববধূর হাতে তুলে দিন নিজ নিজ সন্তানের ভার

৩.
আমরা যারা যৌবনে প্রেমিক ছিলম এবং একদিন
প্রমত্ত স্রোতে ভেসে গেছে প্রেমিকার মুখ
এর জন্য অন্তত একটা বিবাহপূর্ব মিলনের ব্যবস্থা করে দিন

৪.
আমরা যারা পলিবাহিত মাঠ আপনার হাতে সমর্পণ করেছিলাম
সীমাহীন উঁকুন থেকে তাদের অন্তত চুলের পরিত্রাণ করুণ

৫.
যে সকল মৃতদেহ যত্রতত্র ফাটলের ভেতর থেকে
হাত পা কিংবা মাথা তুলে আছে, তাদের প্রতিটি অঙ্গ চমৎকার
ভূয়সী প্রশংসাযোগ্য করে দিন

আজকাল প্রতিটি নদীর জন্য এক একটি বার্তা সংস্থা
বা অনলাইন গণমাধ্যম করে তাকে অন্তত ভিজ্যুয়াল মাধ্যমে
পরিভ্রমণের অবাধ সুযোগ করে দেয়া জরুরি…

 

Irabotee.com,irabotee,sounak dutta,ইরাবতী.কম,copy righted by irabotee.com

 

 

নির্বাচিত কথা

বেলপুর থেকে সীমান্তের দূরত্ব আমার জানা নেই
তবু বন্ধুদের আড্ডায় পাণ্ডিত্য ফলাতে মাথা ঝাঁকুনি দিয়ে
একটা দূরত্ব নির্ধারণ করে ফেলি

যেমন ছোট্টবেলায় হাটের দিনে
শুকনো পাটের ঝুটি দেখেই বলে দিতে পারতাম
সম্ভাব্য ওজনের পরিমাণ

টেকো মাথায় রাজ্যির রোদ্দুর এসে চিকচিক করে ওঠে
যতটা সম্ভব মক্ষিকার মতো প্রলুব্ধ হয়ে
ছায়া নেমে এলেই আবার কোথায় হারিয়ে যায়

বংশীবাদনের মতো নির্বাচিত কলা
প্রাগৈতিহাসিক সত্যের মতো অনুভবে জাগিয়ে রাখি

অথচ একদিন তার সুরে সুরে ভেসে
আমি বহু দূর থেকে বহু দূর দেশে
রাজকুমারীর আতিথ্য গ্রহণে অবিশ্বাস্য প্রতিশ্রুত থাকি

এ রাজ্যের কলমের ব্যবহার এখনো শিখিনি আমি
অথচ তোমাকে চিঠি লিখবো লিখবো করে করেই
যে অন্ধ হয়ে এবাড়ি ওবাড়ি চেয়ে চিন্তে খাই
মাইরি বলছি আজকাল আমার কিচ্ছু মনে থাকে না

 

Irabotee.com,irabotee,sounak dutta,ইরাবতী.কম,copy righted by irabotee.com

 

শিকার
 
মৃত বন্ধুদের কিছু শিকার আজও বয়ে বেড়াতে গিয়ে
কখনও-সখনও রক্তাক্ত হয়ে তাদেরই শিকারে পরিণত হচ্ছি-
 
এই সকল বিপরীতমুখী পদ্ধতি কবেই-না
বনাঞ্চল থেকে উধাও হয়ে গেল!
 
অনর্থই দেখি এখনও নিজেকে লুকিয়ে রেখে
শিকারের জন্য আহারাদি, পরিচ্ছদ, স্নান-গাজনের সুরাহা করতে হয়
 
এখনও শিকার নিয়ে যারা ঘরে বসেই রাতের পরিকল্পনা করছে
রাত্রি এসে সকল ফর্মুলা বানচাল করে
নিজের শরীরে ছুরি ঢুকিয়ে হত্যা করছে ভুল রাত্রির অন্ধকার দেহ
 
নদীতে-হাওড়ে জাল ফেললেই যেমন অত্রাঞ্চল থেকে
বিলয় হতে থাকে বড়শি দিয়ে মাছ ধরার সন্তর্পণ পদ্ধতি
তেমনি শিকারের কথা ভাবলেই মনে পড়ে
নিজেকে হারানোর মতো অনাবশ্যক পরিণতির কথা
 
এবার যখন শিকার নিয়ে জাল বুনবো বলে
কয়েক লক্ষ টন মানব দেহের অঙ্গপ্রত্যঙ্গের কথা ভাবছি
তখন বনেজঙ্গলে বড়শি ফেলে শিকারের পদ্ধতি চালু হতে থাকে
 
আর যখন জঙ্গল কেটে নিশ্চিহ্ন করে
নিজেকে প্রভাতী সূর্যের বংশধর বলে ভাবলাম
মুহূর্তে নিশ্চিহ্ন হয়ে যত্রতত্র ভিডিওচিত্রে
ফুটে উঠল আমার আদি-অনাদি বংশপরম্পরা
 
Irabotee.com,irabotee,sounak dutta,ইরাবতী.কম,copy righted by irabotee.com
 
শূন্যতা ও অস্থিরতা
 
অমন খাঁ খাঁ শূন্যতার পাশে সারারাত নিজেকে বসিয়ে রেখে
অধৈর্য অস্থিরতা নিবৃত্তির ব্যর্থ চেষ্টায় কী আর ফল হবে?
 
যেখানে প্রকৃতি নিজেই সেখানে নেই
বরং মাটিতে নোয়ানো কৃত্রিম কিছু পরিত্যক্ত সার্কাসের ঘোড়া
তোমার দিকে তাকিয়ে বিদ্রুপ করে হাসছে; ফলে, তেলে-বেগুনে
জ্বলে-ওঠা তোমার অস্থিরতায় মহাবিশ্বের একক শূন্যতা বাড়ছে
 
এখন কিছু পাখি ধরা যাক
যারা মা পাখিটার বুকের ওম ছেড়ে একদিন অব্যর্থ উড়ে গিয়েছিল
আরও কিছু পালক বিছিয়ে ছিঁড়ে-ঘেঁটে
অমীমাংসিত শূন্যতার প্রশ্নে নিতান্ত একটা সমাধানে আসা যাক
 
যখন কোথাও না কোথাও ভুল করে
এমন শূন্যতা বিষয়ক জটিলতায় আগামীকাল-পরশু
কেউ না কেউ মুষড়ে পড়তে পারে
পরিত্যক্ত আবর্জনায় বিদ্রুপের দাঁত ঝলসে উঠতে পারে
 
এবার নতুন পুরনো সকল বিদ্যায়তনে শূন্যতাবিষয়ক কিছু
পাঠক্রম গ্রন্থভুক্ত করা অবশ্য জরুরি
যে-সকল শূন্যতা প্রতিদিন মানুষের চলাফেরায় সফরসঙ্গী হয়ে
কিংবা গৃহাভ্যন্তরে পারিবারিক সুহৃদজন হয়ে
একই বিছানায় শুয়ে মিলেমিশে গড়াগড়ি যেতে পারে
 
আর এভাবেই পৃথিবীর সকল শূন্যতায় ছড়িয়ে দিতে পারে
নৈরাজ্যিক অস্থিরতার ঢেউ
Irabotee.com,irabotee,sounak dutta,ইরাবতী.কম,copy righted by irabotee.com
 
 
ইবলিস কিংবা প্রশাসনিক নপুংশক
 
ইবলিস এসে কান মলছে, আর সে তামা-পিতলের
বাসন-কোসন নেড়ে একপ্রকার ঝঙ্কার তুলে
সব কিছু ভুলে মধ্যস্বত্বীয় অভ্যাস ভেঙে স্বাভাবিক হতে চাইছে
 
আর একটু অন্ধকার হলেই তার নাকের নিচ থেকে
টেনে তোলা হবে পরিত্যক্ত রেলগাড়ির চাকা- যা
দুষ্ট লোকেরা হাতিয়ে নিয়ে নিরাপদ আশ্রয় ভেবে
তার নাকের ঢালুতে বসিয়ে রেখেছে
 
ফলে যে গতিময় চক্রাকার ভুবন তাকে
রাতের অন্ধকারে ফিরিয়ে দেয়া হলো-
ভোর হতে না হতেই সে তাকে মাথায় তুলবে
শরীরময় লেপ্টে নিয়ে আত্মীয়-পরিজন কিংবা
নিজ সন্তানের হয়ে ছাড়িয়ে যাবে একের পর এক
সমুদ্র সীমানা, জাতিসংঘের সদর দরজায়
শ্বেতস্রাবের নোংরা ময়লা গাঁদ
 
আবার যখন প্রশাসনিক ভাঁড়েরা এসে তার
কানের কাছে গুন গুন করে গাইবে
সে তখন গায়েই মাখবে না রমণীয় আদিম প্রলোভন
 
এবং তার থলের ঘোড়ারা এক এক করে
লাফিয়ে বেরিয়ে দৌড় শুরু করতেই ইবলিস কিংবা
প্রশাসনিক নপুংশকেরা ঘোড়ার পেছনে ছুটতে ছুটতেই
অশ্বখুরে আহত হয়ে অজস্র দিন সহস্র রাত কাবাড় করে দেবে
 
Irabotee.com,irabotee,sounak dutta,ইরাবতী.কম,copy righted by irabotee.com

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: সর্বসত্ব সংরক্ষিত