ক্লাইম্যাক্সের গতি ধরে রাখতে ব্যর্থ বদলা

আহত নয়না শেঠি (তাপসী) আবিষ্কার করে হোটেলের ঘরে মরে পড়ে আছে তার প্রেমিক (টনি লিউক)। ভিতর থেকে দরজা-জানলা বন্ধ। পুলিশ হত্যাকারী হিসেবে তাকে ধরে নিয়ে যায় এবং এক বন্ধুর সাহচর্যে সে বেলও পায়। এই রকম সময়ে তাকে এই কেসে সাহায্য করতে এগিয়ে আসে উকিল বাদল গুপ্ত (অমিতাভ)। এইখান থেকে গল্প শুরু এবং তারপর একের পর এক একই ঘটনার নানা রকমের বিশ্লেষণ করে বাদল। তার একটাই উদ্দেশ্য নয়নাকে বাঁচানো। ঘটনাচক্রে এই মার্ডার মিস্ট্রির মধ্যে জড়িয়ে পড়ে রানি কউর (অমৃতা)।

শেষ পর্যন্ত একটা ধাঁধাঁ তৈরি হয় দর্শকের কাছে। মূল অপরাধী কে? নয়না নাকি রানি? এই হল বদলা ছবির গল্প। অরিজিনাল গল্প নয়। স্প্যানিশ ছবি ‘কন্ট্রাটিয়েম্পো’ (দ্য ইনভিজিবল গেস্ট) থেকে পুরোপুরি তুলে আনা। কেবল ওই ছবিতে উকিল ছিলেন একজন নারী, আর সন্দেহজনক কালপ্রিট ছিলেন একজন পুরুষ। এই ছবিতে সেটা উল্টে দেওয়া হয়েছে।

২০১৬ সালে মুক্তি পেয়েছিল ‘পিঙ্ক’। দেশের নারীদের ওপর অত্যাচারের এ নির্মম পরিস্থিতি তুলে ধরেছিল ছবি। সেই ছবিতেও তাপসী পান্নু ও অমিতাভ বচ্চনের অভিনয় মন কেড়ে নিয়েছিল । আর এবার ফের একবার দুই তারকা একসঙ্গে। আর এবারেও নারী দিবসে মুক্তি আরও এক নারীর নির্মম কাহিনি।বদলা’ তেও তার অন্যথা হয়নি। যতটা জমি দখল করে অভিনয় দক্ষতা দেখিয়েছেন অমিতাভ, ততটাই জমি দখল করে রেখেছেন তাপসীও। এছাড়াও বিশেষ ভূমিকায় অমৃতা সিং ও মাতিয়ে দিয়েছেন ছবি। একদিকে প্রযোজনায় শাহরুখ খান, অন্যদিকে অভিনয়ে অমিতাভ, আর পরিচালনায় সুজয় ঘোষ।যিনি অসামান্য দক্ষতায় একটি খুনের চিত্রনাট্য তুলে ধরেছেন। ছবির প্রথমার্ধের বিভিন্ন দিক বেশ টানটান উত্তেজনায় পরিপূর্ণ। কিন্তু ক্লাইম্যাক্স পর্যন্ত সেই গতি ধরে রাখতে ব্যর্থ সুজয়ের ছবি বদলা।

 

 

 

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত