বিশ্ব বই দিবসে কিছু নিষিদ্ধ বইয়ের খোঁজে

Reading Time: 6 minutes
 
আজ ২৩ এপ্রিল, সোমবার, বিশ্ব বই দিবস। জাতিসংঘের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ইউনেস্কোর উদ্যোগে ১৯৯৫ সাল থেকে প্রতিবছর এই দিবসটি পালন করা হয়। বই দিবসের মূল প্রতিপাদ্য হলো, ‌’বই পড়া, বই ছাপানো, বইয়ের কপিরাইট সংরক্ষণ করা ইত্যাদি বিষয়ে জনসচেতনতা বাড়ানো।’
বিশ্ব বই দিবসের মূল ধারণাটি আসে স্পেনের লেখক ভিসেন্ত ক্লাভেল আন্দ্রেসের কাছ থেকে। ১৬১৬ সালের ২৩ এপ্রিল মারা যান স্পেনের আরেক বিখ্যাত লেখক মিগেল দে থের্ভান্তেস। আন্দ্রেস ছিলেন তার ভাবশিষ্য। নিজের প্রিয় লেখককে স্মরণীয় করে রাখতেই ১৯২৩ সালের ২৩ এপ্রিল থেকে আন্দ্রেস স্পেনে পালন করা শুরু করেন বিশ্ব বই দিবস। এরপর ১৯৯৫ সালে ইউনেস্কো দিনটিকে বিশ্ব বই দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেয় এবং পালন করতে শুরু করে। সে থেকেই বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রতিবছর ২৩ এপ্রিল বিশ্ব বই দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।
  বিশ্ব বই দিবসে কিছু নিষিদ্ধ বইয়ের খোঁজঃ   উইলিয়াম টেইন্ডাল অনূদিতবাইবেল অশ্লীলতার কারণে প্রথম যে বইটি নিষিদ্ধ হয় সেটি ছিল খ্রস্টানদের পবিত্র বাইবেল। ইংল্যান্ড থেকে প্রকাশিত উইলিয়াম টেইন্ডাল (William Tyndale) অনুদিত বাইবেল নিষিদ্ধ হওয়ার কারণ ছিল অশ্লীলতা (বিবাহবিচ্ছেদ নিয়ে আলোচনা)। তৎকালীন অষ্টম হেনরি নিজের জীবনের বিবাহ বিচ্ছেদ নিয়ে বিস্তর ঝামেলায় পড়েছিলেন। তিনি চেয়েছেন বিবাহ বিচ্ছেদ নিয়ে কোথাও যেন আলোচনা না হয়। তাই পরিশেষে পুড়িয়ে ফেলা হয় অনুদিত বাইবেলের ছ’হাজার কপি। অনুদিত বাইবেলটি নিষিদ্ধ হওয়ার পর টেইন্ডাল প্রানে বাঁচার জন্য দেশত্যাগ করতে হয়েছিল। কিন্তু মজার ব্যাপার হল বর্তমানে সেই অনুদিত বাইবেলটিই পুরো বিশ্বের মানুষ অনুস্মরণ করছে।   ডাউনলোড করে নিতে পারেন – http://www.biblicalscholarship.com/Tyndale.pdf দ্য রামায়াণঅব্রে মেনেন “দ্য রামায়ানা অ্যাজ টোল্ড বাই অব্রে মেনেন” (The Ramayana as Told by Aubrey Menen) ছিল নিষিদ্ধ ঘোষিত আরেকটি ধর্মীয় গ্রন্থ। আধুনিক আঙ্গিকে রামায়ণকে ব্যাখ্যা করায় গ্রন্থটি নিষিদ্ধ করা হয়। দেব দেবীকে মানবরূপে উপস্থাপনের কারণে ভারত সরকার গ্রন্থটি ১৯৫৬ সালে প্রকাশিত হওয়ার সাথে সাথেই নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। ডাউনলোড – http://pdf-get.org/ebook/the-ramayana-as-told-by-aubrey-menen.html   ইউলিসিসজেমস জয়েস সাহিত্যের ইতিহাসে আরেকটি অবাক করার মতো ঘটনা ঘটিয়েছিলেন জেমস জয়েস (James Joyce) তার বিখ্যাত ইউলিসিস (Ulysses) লিখে। তিনি ১৯০৪ সালে জুন মাসে মাত্র ১৮ ঘন্টার ঘটনা (সকাল ৮টা থেকে বিকাল ২টা) নিয়ে উপন্যাস লিখেছিলেন। উপন্যাসটি প্রকাশিত হওয়ার পর অশ্লীলতার অভিযোগে নিষিদ্ধ হয়ে যায়। উপন্যাসটির ৪৯৯ কপি পুড়িয়ে ফেলা হয়। উপন্যাসটি এত তথ্যবহুল ছিল যে জয়েস বলেছিলেন “ডাবলিন শহর যদি কোনদিনে ধ্বংস হয়ে যায় তাহলে হুবহু শহরটি গড়ে তোলা যাবে তার এই ইউলিসিস থেকে।” বইটি কেবল উপন্যাস নয় জীবন্ত ইতিহাসও বটে। বর্তমানে উইলিসিস সেরা উপন্যাসগুলোর মধ্যে একটি। ইউলিসিস ডাউনলোড – http://www.planetebook.com/Ulysses.asp   দ্য অ্যাডভেঞ্চার অব হাকলবেরিফিনমার্ক টোয়েন মার্ক টোয়েনের ‘দ্য অ্যাডভেঞ্চার অব হাকলবেরি ফিন’ ভাষার অজুহাত দেখিয়ে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। বইটি মূলত বর্ণান্ধতার কারণে মার্কিনিরা নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। ১৮৮৪ সালে প্রকাশিত এ বইয়ে শ্বেতকায় ছেলে এবং কৃষ্ণাঙ্গ মানুষের বন্ধুত্ব দেখানো হয়, যা শ্বেতঙ্গ শাসকেরা স্বাভাবিকভাবে নিতে পারেনি। বর্তমান বিশ্বে ‘দ্য অ্যাডভেঞ্চার অব হাকলবেরি ফিন’ বইটি সুপাঠ্য। ডাউনলোড – http://contentserver.adobe.com/store/books/HuckFinn.pdf or, http://www.planetebook.com/The-Adventures-of-Huckleberry-Finn.asp   এনিমেল ফার্মজর্জ অরওয়াল জর্জ অরওয়েলের ‘এনিমেল ফার্ম অ্যা ফেয়রি টেল’ বইটি মূলত সাংকেতিক উপন্যাস। এ উপন্যাসে রাশিয়ার স্টালিন যুগের ভয়াবহতাকে তুলে ধরা হয়েছিল। বইটি রাশিয়াতে নিষিদ্ধ হওয়ার পরে এনিমেল ফার্ম (Animal Farm) নামে মার্কিন মুল্লুকে প্রকাশিত হয়। ডাউনলোড – http://www.filesonic.com/file/186317341/AnimalFarm.pdf or, http://letitbit.net/download/78821.72a4ea49695444c34587bdc0b529/AnimalFarm.pdf.html   প্রজাপতিসমরেশবসু সমরেশ বসুর “প্রজাপতি” অশ্লীলতার অভিযোগে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল। এবং ১৮ বছর বন্ধ রইল এর প্রকাশ। লেখক বুদ্ধদেব বসু আদালতে সাক্ষ্য দিতে গিয়ে বলেছিলেন, “ যৌনতার কারণে ‘প্রজাপতি’ নিষিদ্ধ হলে বাইবেল মহাভারতেকেও নিষিদ্ধ করতে হয়।” পরে বইটির উপর থেকে সকল আইনি বাধা তুলে নেয় হয়। ডাউনলোড – http://www.amarboi.com/2012/01/projapoti-samoresh-basu.html   ললিতা: ভ্লাদিমির নবকভের লেখা এই বইটিতে খোলাখুলি যৌণ বিবরণের কারণে তা নিষিদ্ধ করা হয়। কিন্তু মজার ব্যাপার হল নিষিদ্ধ হওয়ার পর সকলের আগ্রহ আরো বেড়ে যায়। এখন সারা বিশ্বে ললিতা শব্দটি যৌণতার সমার্থক হয়ে দাড়িয়েছে। ডাউনলোড – http://kickass.to/lolita-vladimir-nabokov-eng-pdf-t8310889.html       বিশ্ববিধান সম্পর্কে কথোপকথনগ্যালিলিও গ্যালিলি গ্যালিলিও গ্যালিলির “বিশ্ববিধান সম্পর্কে কথোপকথন” বইটিতে মহাবিশ্বের চরম সত্য ফুটে উঠলেও চার্চের তৎকালীন ধারনা ছিল পৃথিবী স্থির এবং অন্যসব গ্রহ নক্ষত্র পৃথিবীকে ঘিরে আবর্তিত হচ্ছে। কিন্তু গ্যালিলিও বললেন পৃথিবী সহ অন্যসব গ্রহ নক্ষত্র সূর্যকে কেন্দ্র করে ঘুরছে। চরম সত্য কথাটি চার্চের বিরুদ্ধে চলে যায়। পরবর্তীতে ক্ষুব্ধ পোপ অনির্দিষ্টকালের জন্য গ্যালিলিওকে বন্দী করার নির্দেশ দেন। ১৬৪২ সালে গ্যালিলিওর বন্দী অবস্থায় মৃত্যু হয়। তবে বন্দী দশা থেকে এক কপি চালান করে ছিলেন স্ট্রসবুর্গ-এ যা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। গ্যালিলিওর সেই বিশ্ববিধান জোর্তিবিদ্যার আমূল বদলে দিয়েছে।   অ্যা ফেয়ারওয়েল টু আর্মসআরনেস্ট হেমিংওয়ে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময়কার আধা-আত্মজীবনীমূলক এই উপন্যাসটি প্রকাশিত হয়  ১৯২৯ সালে ইটালিতে। উপন্যাসটিতে কাপোরেত্ত যুদ্ধক্ষেত্র থেকে ইতালীয়  সৈন্যদের পিছু হটার ঘটনাটি ভীরুতা হিসেবে উল্লেখ এবং অশ্লীলতার দায়ে সেই  সময়কার আদালত বইটি নিষিদ্ধ ঘোষণা করে।   এলিসস অ্যাডভেঞ্চার ইন ওয়ান্ডারল্যান্ডলুইসক্যারল বইটি চীনে সম্পূর্ণ অপ্রত্যাশিত ও অদ্ভুত একটি কারণে চীনা সরকার কর্তৃক  নিষিদ্ধ হয় ১৯৩১ সালে। হানান প্রদেশের একটি আইন ছিল যে, কোন পশুর  কণ্ঠে কোনভাবেই মানুষের ভাষা তুলে দেওয়া যাবে না এতে পশুকে মানুষের  সমমর্যাদায় নিয়ে আসা হবে। কিন্তু বইটিতে বিড়াল, মানুষের মতো করে কথা  বলতে পারে আর এজন্যেই বইটি নিষিদ্ধ হয়ে যায়।   অল কোয়ায়েট অন দ্য ওয়েস্টার্ন ফ্রন্ট প্রথম বিশ্বযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী এক জার্মান সৈনিক যিনি পরবর্তীতে পৃথিবীর সবচেয়ে অনুভূতিপ্রবণ ঔপন্যাসিকদের একজন হয়ে ওঠেন- তিনি এরিক মারিয়া রেমার্ক। তার রচিত বিখ্যাত যুদ্ধবিরোধী উপন্যাস- অল কোয়ায়েট অন দ্য ওয়েস্টার্ন ফ্রন্ট (মূল নাম- ইম ওয়েস্তেন নিখৎস নুয়্যেস)- সে সময়ে জার্মানির সমরনীতি ও যুদ্ধের বীভৎসতার দিকে দুঃসাহসিক আঙুল তুলেছিল। ১৯২৯ এ প্রকাশিত এ বইটিকে নিষিদ্ধ করেছিল জার্মান সরকার। অতঃপর ১৯৪১ এ আরও একটি বিশ্বযুদ্ধ সংঘটিত হয়।   হিস্ট্রি অব ইটালিথমাস উইলিয়াম ১৫৫৪ সালে প্রকাশিত থমাস উইলিয়ামের (Thomas William) “হিস্ট্রি অব ইটালি” বইটি তৎকালীন ধর্মযাজকদের অনৈতিক কাজের জীবন্ত সাক্ষ্য বহন করে। তখনকার সময়ে যেহেতু চার্চই ছিল সর্বোচ্চ প্রতিষ্ঠান তাই ধর্মযাজকদের দাপটও ছিল উচ্চপর্যায়ে। কেউ যেন কখনও যাজকদের অনৈতিকতা তুলে ধরতে না পারে তার দৃষ্টান্ত সরূপ থমাসকে টুকরা টুকরা করে কেটে মৃত্যুদন্ড দেওয়া হয়েছিল।   লেডি চ্যাটারিজ লাভার: ডি এইচ লরেন্স এর বইটিতে ঘন ঘন fuck ও sex শব্দ দুটি ব্যবহৃত হওয়ায় বইটি নিষিদ্ধ করা হয়। পরে অবশ্য বইটি নির্দোষ প্রমাণিত হয়।   ক্রয়টজার সোনাটা: লিও টলস্টয় এই বই লেখার আগে কোন বিতর্কে ছিলেন না। তবে এই বইয়ের কাহিনি এরকম যে-এক স্বামি তার স্ত্রীকে খুন করেন স্ত্রীর পরকিয়ায় ঈর্ষান্বিত হয়ে। বইটি এখনও নিষিদ্ধ তালিকায় অবস্থান করছে।   নিষিদ্ধ বইয়ে নির্মিত স্মৃতিস্তম্ভ  
এটি শুধুমাত্র শৈল্পিক নিদর্শন নয় বরং এটি রাজনৈনিক নিপীড়ন প্রতিরোধের একটি প্রতীক।এটি শুধুমাত্র শৈল্পিক নিদর্শন নয় বরং এটি রাজনৈনিক নিপীড়ন প্রতিরোধের একটি প্রতীক।
আর্জেন্টিনার শিল্পী মার্টা মুনজিন, বয়স ৭৪ বছর, তিনি ১০০,০০০টি নিষিদ্ধ বইয়ের কপি ব্যবহার করে প্রাচীন গ্রীকের অ্যাথেনীয় মন্দিরের প্রতিরূপে একটি স্মারক নির্মাণ করেছেন। এই শিল্পীর মতে, এটি শুধুমাত্র শৈল্পিক নিদর্শন নয় বরং এটি রাজনৈতিক নিপীড়ন প্রতিরোধের একটি প্রতীক।

Roman MärzRoman März

জার্মানের ক্যাসেলে বইয়ের এই পার্থেনন ১৪তম ডকুমেন্ট উৎসবের একটি অংশ। ক্যাসেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের সহায়তায় শিল্পী মুনজিন ১৭০টিরও বেশি গ্রন্থাদির নাম চিহ্নিত করেছেন যা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নিষিদ্ধ বা নিষিদ্ধ করা হয়েছিলো এবং ঐসব বই, প্লাস্টিকের শীটিং আর ইস্পাত দিয়ে আইকনিক মন্দিরের পূর্ণ আকারের পার্থেনন তৈরি করেছেন।

alexgorlinalexgorlin

voeworkvoework

কিন্তু সম্ভবত জার্মানির সবচেয়ে বিতর্কিত বই- অ্যাডলফ হিটলারের “মেইন ক্যাম্পফ” পার্থননের উপর প্রভাব বিস্তার করে না, এবং আর একটা কারণঃ নাৎসিরা বইয়ের প্রখ্যাত সমালোচক ছিলেন।

rachelmijaresfickrachelmijaresfick

প্রকৃতপক্ষে, মুনজিনের এই কাঠামোটি একটি ঐতিহাসিক স্থানে দাঁড়িয়ে আছে, যেখানে ১৯৩৩ সালে সেন্সরশিপের ব্যাপক প্রচারাভিযানের অংশ হিসেবে নাৎসিরা ২,০০০টি বই পুড়িয়ে দিয়েছিলো। উনিশ শতকের দিকে হেনরিচ হাইন বলেছিলেন, ‘যেখানে তাঁরা বইগুলো পুড়িয়ে দেয়, সেখানে শেষ পর্যন্ত তাঁরা মানুষকে পুড়িয়ে দেয়’।

lctannerlctanner

নিষিদ্ধ বইগুলো প্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে তা প্রতি পাঁচ বছর পর পর মানুষকে স্বরণ করিয়ে দেওয়া হয়। নাৎসি আমলের সময় নিষিদ্ধ বইগুলোর মধ্যে আছে মার্ক্সের ও ইহুদিদের লেখা বইগুলো।

thegood.thebad.thebooksthegood.thebad.thebooks

 jingyincjingyinc

বোরড পান্ডা থেকে অনুদিত।
       

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

You may use these HTML tags and attributes:

<a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

error: সর্বসত্ব সংরক্ষিত