উপসংহারে অন্য সকাল

কথাশিল্পী মেঘ অদিতি কবিতার মানুষ। তাই তিনি যখন গদ্য লেখেন তখন তাতে থাকে কাব্যময়তা, পেলব শব্দচয়ন আর ছন্দময় সুষমা। সদ্য তাঁর রচিত ‘উপসংহারে অন্য সকাল’ গল্পগ্রন্থটি পাঠ করে উপলব্ধি হলো তিনি গল্পেও ভীষণ সাবলীল।

‘এই মুহূর্তে মৃদু আলোর শেষ বিকেলে সে আনমনা চোখ রেখেছে জাম গাছের উঁচু ডালে। অনেকটা সময়,একইভাবে তাকিয়ে, যেন মন কোথায় উড়ে চলেছে। ডালে আটকে থাকা একটা একলা ঘুড়ি কি তাকে এখন মুগ্ধ করে দিচ্ছে নাকি সে হারিয়ে গেছে টাইম স্পেসে জমা পড়ে থাকা তার অমল শৈশবে…অথবা আসন্ন কোনো সঙ্কেতবাহী এই আতরগন্ধা হাওয়া তাকে আচ্ছন্ন করে রেখেছে ঠিক বোঝা যাচ্ছে না। ‘

এমন কুসুম কোমল শব্দচয়ন এবং অপূর্ব গদ্যশৈলীর উদাহরণ আছে প্রায় প্রতিটি গল্পে।

‘আতর ছড়ানো সে বিকেলের কথা’ গল্পের শুরুটা এমন যে শেষ অব্দি পড়তেই হয়। গল্পটির বিস্তার পরিচিত হলেও সমাপ্তিটা অপ্রত্যাশিত। কিন্তু মানবমনের গতিপথ ব্যবচ্ছেদ করলে এই সমাপ্তিকেই আবার অসম্ভব কিছু বলে মনে হয় না।

আকাশ ফুটো হয়ে বৃষ্টি নেমেছে। সর্বগ্রাসী নদী কেড়ে নিয়েছে জীবন আর পায়ের তলার মাটি। মৃত্যুর উপলক্ষকে কেন্দ্র করে মেহেরুন বিবির সন্তান দীর্ঘকাল পর ফিরেছে ঘরে। কিন্তু ঘর কোথায়! ‘অতল ভ্রমণে’ শিরোনামের এই গল্পটি হারিয়ে যাওয়া ঘরের গল্প। অতল জলের বুকে হদিস মেলে না কিছুর। রতন প্রশ্ন করে -আব্বা ঘর কই? আর পাঠক আরেকবার উপলব্ধি করে জীবন নদীর স্রোতের তোড়ে কত সহজেই ঘর কিংবা শেকড় এভাবে হারিয়ে যায়।

‘কোথায় গেলে মানুষ পাব মানুষ…একজন মানুষের পরিচয়ের মাপকাঠি কেন মানবতা ও তার কাজ হয়ে ওঠে না…এ পোড়া দেশে কেন মানুষে মানুষে এত বিভেদ এত আইডেন্টিটি ক্রাইসিস!’ ‘আলো ক্রমে নিভিতেছে’ গল্পের কথকের এই কথাগুলো নিদারুণ সত্যভাষণ বলে মনে হয়। হারিয়ে যাওয়া শিবুর জন্য টুসুর কান্না যেন কান পাতলে শোনা যায়। প্রগাঢ় অন্ধকারে ডুবে যেতে থাকা শিবুর জন্য মন আর্দ্র হয় যার মুখটি বোধ হয় খুব অপরিচিত কিছু নয়।

‘জেনারেশন গ্যাপ’ শব্দজোড়টি যতটা ছোট সত্যিকার অর্থে এই গ্যাপ বা শূন্যস্থানটি তারচেয়ে অনেক অনেক গভীর। বলতে না পারা কথার পাহাড় বুকে নিয়ে বিষণ্ণ টিনেজ সন্তান ক্রমশ দূরে সরে যায় পরিবারের কাছ থেকে আর সে দূরত্ব কখনো কখনো অনতিক্রম্য হয়ে পড়ে। এই দূরত্বটা ভীষণ পরিচিত। ‘রাত ডায়ারির পাতা থেকে’ গল্পটা তাই গল্প হলেও সত্যি।

আলোভুক পোকার মতো উড়ে চলা জীবন হয় কারো কারো৷ পুরনো আর চিরচেনা হেমফোঁড় ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে কুরুশকাঁটার মোহে আচ্ছন্ন হতে চায় সে জীবন। তারপর দিন শেষে যখন ফিরতে হয় নিজের কাছে তখন হাতে থাকে শুধু বিভ্রম আর দীর্ঘশ্বাস। ‘নীলে ভেসে আসা কিছু বিভ্রম ‘ গল্পটি তাই বলে।

‘অ-পর’ গল্পটি বন্ধুত্ব আর কাঁটাতারের। মানুষের সাথে মানুষের সম্পর্ককে যখন কাঁটাতারের সীমানায় বিভাজিত হতে হয় তখন যেকোনো বিবেক সম্পন্ন মানুষের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়। এই গল্পে বন্ধুর সাথে বিচ্ছেদের কারণে মণির যে মনোবেদনা সেটা তাই যথার্থ। গল্পে রবিনহুডের রিক্সায় চেপে সুচেতার সাথে ব্রহ্মপুত্র দেখতে যাবার স্বপ্নটা মণির জন্য স্বপ্নই থেকে যায় আর সুচেতা হারিয়ে যায় নিরুদ্দেশে।

মানব মানবীর অজানিত সম্পর্ক আর টানাপোড়েনের গল্প ‘উপসংহারে অন্য সকাল’। গল্পটি অন্য রকম এক উপসংহারে এসে ভাবনার সুতোকে নাড়িয়ে দিয়ে যায় এবং পাঠক মনকে আলোড়িত করে।

এই গ্রন্থের অন্যতম সুন্দর গল্প ‘দ্য ব্রোকেন কলাম’ । শ্বাসযন্ত্রে অম্লজানের ধারা যতদিন অব্যাহত আছে ততদিন ক্যানভাসে নিত্য নতুন রঙের পরত দেয়াই হলো জীবনের নিয়ম। আর জাগতিক যন্ত্রণাকে উপেক্ষা করে এভাবে বাঁচবার আরেক নাম হলো বিপ্লব। এই আখ্যানটি পড়ে এই গভীর উপলব্ধিটুকু সঞ্চয় হয়। চমৎকার এই গল্পটি ভিন্ন ধাঁচের এবং দীর্ঘদিন মনে রাখবার মতোন।

‘উপসংহারে অন্য সকাল’ গ্রন্থটি মোট ১৫টি গল্প নিয়ে সংকলিত হয়েছে। প্রকাশ করেছে বৈভাষিক প্রকাশন। বইটির প্রচ্ছদ করেছেন নবেন্দু সেনগুপ্ত। কথাশিল্পী মেঘ অদিতির এই গল্পগ্রন্থটি দারুণভাবে পাঠক আদৃত হোক এবং তিনি ভবিষ্যতে কবিতার পাশাপাশি পাঠককে আরো অভিনব সব গল্প উপহার দেবেন বলে প্রত্যাশা রাখি।

 

 

 

 

 

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত