চারটি কবিতা

শিল্পছবি
এই নিভৃত ঠিকানায়-তুমি এমনই এক শিল্পছবি
শুন্য থেকে ভরাট-পড়শিবাড়ির মালকোচা জানালায়
-নতুন প্রতীক্ষা,অজান্ত উদাসীন-বিনির্মাণে সঙ্গম শরীর
ঘন ঘুৎকারে ভৌতিক প্যাঁচা,সজনেডাঁটায় সুরপাগল
-লিরিক বাতাস,আঁধারশাসিত ঘন মেঘ,ব্যাকুল রূপকথা-
এভাবে আষাঢ়,খুচরো রোদ-বৃষ্টি,ভেজা দিগন্ত
-ধানখেত,আলপথ-ঝরাপাতা,সকল সম্প্রদায় পেরিয়ে
কারোর কালোছাতির বগলদাবা টেনে-শৈশব উঠানে
নাগরিক চোখের ভেতর;নিজের ভেতর-আহ!মনোবক্সঃ
আমার নির্জন প্রাসাদ
একদিন কবিতার কাছে গেলাম
আমার সমস্ত হৃদয় শরীর নিয়ে
হেমন্ত সন্ধ্যায় পা-পাতা নখ টিপে
বহুদিন পর,প্রথম দেখা-নবান্ন চারদিকে
বহুত সুন্দরী যে পৃথিবীর কাছে-
বিপুল কারুকার্য-নগরে,কমলা রোদ
আমি দেখলাম তার কাতুকুতু শিয়র দেহ
আসে আর যায় আমার নির্জন প্রাসাদে
বহুরূপী রমণী হারিয়ে অনন্য রমণী সে;
নীলরত্ন মৌন আকাশ
শরীরের সুস্বাদু চিনিমাখা নীলরত্ন মৌন আকাশ
তেখাঁজ বরফ,শাদা কাফনের মতো;ছড়ানো-
আলুথালু মাছকাঁটা হ্রদ-শিতিল বৃক্ষ,
বোবাবাতাস পরিযায়ী ডানায় হিমালয়-উর্বর দ্বীপপুঞ্জ
ঘাসের পাখনায় রোদগলা বিকেল-সোনাধান
অদূরে বাতাবিলেবু থোড়-থমথম রাত-নক্ষত্র;
এভাবে,যেভাবে-প্রশস্ত চোখ চমকায়
সৌধ ফসলির অভয়ারণ্য-হাঁটুভর সমুদ্র
হরফের মতো মাটি থেকে বালুকণা-পাথর-নদী,
যুগল বাধা গাঙচিল,ঠোঁটে ঠোঁটে দুই শামুক-
সুসম্পন্ন রমণী ও পুরুষ-গাঢ় ছায়ায় ডুবছিল
বীজ থেকে দৈর্ঘ্য পৃথিবী
ফুরফুরে মেজাজ-কখনো বিভোর স্বপ্নে চাঁদ উলটায়-
ঝটপট সিদ্ধান্তে তরুণ ছন্দ বায়ু সিনেমার নৃত্যশালা,
কখনো ছদ্মনামে শরীরের রঙ পালটায়
মন খারাপের ব্যত্যয় ভেঙে-গোলপাতার ঘর
ছেঁড়াখোঁড়া দেওয়াল ভরা বঙোপের হিমালয়-সুন্দরবন,
বোতাম ভাঙা ময়লা জামার আলপিনে
পালতোলা নদীর ডুবছবি,দু দিকে শহর আর গ্রামের পথ;
মধুভ্রম স্বপ্ন দরজা আঁকে-সকল ঋতু
বর্ষাগম চৈত্রের মখমলি মাটির বীজ থেকে দৈর্ঘ্য পৃথিবী।

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত