দ্যুতি চাঁদের সাহসী স্বীকারোক্তি

Reading Time: 2 minutes।। মনীষা দাশগুপ্ত ।।

সব দিক দিয়েই ছকভাঙা ভারতের দ্রুততম মেয়ে দ্যুতি চাঁদ। তিনিই প্রথম ভারতীয় মহিলা খেলোয়াড় যিনি অকপটে স্বীকার করেছেন নিজের সমলিঙ্গ সম্পর্কের কথা। ১০০ মিটার দৌড়ে রেকর্ড সৃষ্টিকারী এবং ২০১৮ সালের এশিয়ান গেমসে দু’বার রুপোজয়ী, ২৩ বছরের দ্যুতি জানিয়েছেন গত তিন বছর ধরে নিজের গ্রামের একটি মেয়ের সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে তাঁর। সঙ্গিনীর পরিচয় অবশ্য গোপনই রেখেছেন তিনি।

প্রসঙ্গত গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে সম্মতির ভিত্তিতে দু’জন প্রাপ্তবয়স্কের সমলিঙ্গ সম্পর্কের বৈধতা স্বীকার করে নিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। দ্যুতি জানিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের রায় জেনে স্বস্তি পেয়েছিলেন তাঁরা এবং তার পরেই সিদ্ধান্ত নেন বাকি জীবনটা একসঙ্গে কাটানোর।

কীভাবে আলাপ হল সেই বান্ধবীর সঙ্গে? দ্যুতি বলছেন, ‘‘সুপ্রিম কোর্ট ৩৭৭ ধারা বাতিল করার পর আমরা ঠিক করি একসঙ্গে থাকব। আমরা বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিই। ও নিজেও খেলাধুলো পছন্দ করে। আমার নিজের জীবনে আমাকে যে লড়াইয়ের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে সে খবরও ও রাখত। ও আমাকে জানিয়েছিল আমার লড়াই ওকে অনুপ্রেরণা জোগায়। এভাবেই আমরা পরস্পরের সংস্রবে আসি।’’

দ্যুতি জানিয়েছেন খেলা ছাড়াও তাঁর জীবনে আরও নানান দিক রয়েছে। ‘‘আমরা কোনও অপরাধ করছি না। জীবনটা আমাদের এবং নিজেদের ইচ্ছেমতো জীবন কাটানোর অধিকার আমাদের রয়েছে। আমি দেশের হয়ে খেলি বলে আমাকে সবাই চেনেন, কিন্তু খেলা ছেড়ে দেওয়ার পরেও আমি একটা পরিপূর্ণ জীবন কাটাতে চাই!’’

দ্যুতির এই খোলামেলা ঘোষণাকে অবশ্য ভালো চোখে দেখেননি তাঁর বাড়ির লোকজন। দ্যুতির মা আখুজি চাঁদ স্পষ্ট জানিয়েছেন, মেয়ে হয়ে দ্যুতি আর একটি মেয়েকে বিয়ে করতে চলেছেন জেনে তাঁরা স্তম্ভিত। সমলিঙ্গের এই সম্পর্কের তাঁরা পুরোপুরি বিরোধী বলেও জানিয়ে দিয়েছেন তিনি।

দ্যুতির বিরুদ্ধে আরও অভিযোগ শানিয়েছেন তাঁর মা। জানিয়েছেন পরিবারকে যথেষ্ট অর্থসাহায্য করেন না দ্যুতি। ‘‘এশিয়ান গেমসে রুপো জেতার পর ও তিন কোটি টাকা পেয়েছিল। আমাদের আরও ছ’জন মেয়ে রয়েছে। আমরা বারবার বলেছিলাম ওই টাকার থেকে কিছুটা আমাদের দিতে, কিন্তু ও শোনেনি।’’ দ্যুতির বড়ো বোন সরস্বতীও মনে করছেন অন্য কারও অঙ্গুলিহেলনে চলছেন দ্যুতি। ‘‘ওরা দ্যুতির টাকা চায়, ওরাই ওকে ভুল পথে চালনা করছে,’’ বলেছেন সরস্বতী।

দ্যুতি অবশ্য নিজের অবস্থানে অনড়। পারিবারিক বা অন্য কোনও চাপের মুখে মাথা নোয়ানোর প্রশ্নই নেই বলে জানিয়ে দিয়েছেন তিনি। টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, ‘‘আমার দিদি আমায় বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন। আমার ভাইকেও উনি বাড়ি থেকে তাড়িয়েছেন কারণ ভাইয়ের বউকে তাঁর পছন্দ ছিল না। কিন্তু আমি ওঁর চাপের সামনে মাথা নিচু করব না। আমি প্রাপ্তবয়স্ক। ওঁদের যা খুশি ওঁরা করতে পারেন। আমার সমলিঙ্গের সম্পর্কের কথাটা আমি জনসমক্ষে এনেছি দুটো কারণে। আমি কোনও ভুল করিনি, আমি এর জন্য লজ্জিতও নই। আমি সবাইকে গর্বের সঙ্গে জানাতে চাই, হ্যাঁ, আমি সমলিঙ্গ সম্পর্কে আছি। আমার বান্ধবী আমার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মানুষ।’’

    .  

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

You may use these HTML tags and attributes:

<a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>