আশ্রয়


মৌমিতা ঘোষের বাবা গৌতম চট্টোপাধ্যায়

বাবা ডাকটার একটা অন্যরকম প্রশ্রয় আছে। আছে নিজের অপূর্ণতার ভরসাপূর্তি। কোন কোন সকাল বাবাদের মতো হয় , আশ্রয়ের … নিশ্চুপ এক কোমলতার ।কোন কোন ঘড়ির নির্দিষ্ট সময় পার হওয়া রাত বাবাদের মতোই একটু কঠোর, আগলে রাখার অনাবশ্যক অস্থিরতা‌।
বাবা ডাকটার মধ্যে জীবনের এক আদিম সঙ্গীত আছে , মন ভালো করা। এক হাজার বার ঝগড়ার পিছনের লুকোনো এক খেয়াল, ‘ মেয়েটা খেলো তো? ‘ মেয়ে শ্বশুর বাড়ি চলে গেলে যে লোকটা একলা হাঁটে মাইলের পর মাইল, যে লোকটা চোখের জল লুকিয়ে স্মৃতিগুলোকে যত্নে সাজায় ফুলদানিতে, কবে ফিরবে র আশায় বাজার করেনা, আর মেয়ে ফিরলে সব্জি বাগান আছড়ে পড়ে রান্না ঘরে সেই লোকটাকে ডাকার সময় যে অনুভূতি , সেটুকু নিয়ে রান্নাঘর, অফিস, কাজে প্রশংসায় একটা মেয়ে পথ চলে, চলতেই থাকে।তার মাথার মধ্যে সাজানো থাকে কিছু রজনীগন্ধা স্মৃতি, একটা আদরের কোল, আর ঘুমিয়ে কাদা হয়ে আঁকড়ে থাকা ছোটবেলা। মেয়েটা এসব ছেড়ে বড় হতে চায়না‌।

বাবা চলে যায়। কষ্টের একটা দিন রেখে যায়। নিজের সাথে পথ চলার দিন। বড় হয়ে যাওয়ার দিন।

 

 

 

 

.

 

 

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত