প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থ ‘বৃষ্টি তোমাকে দিলাম’

 

ছবিঃ বৃষ্টি তোমাকে দিলাম

পরিচালকঃ অর্ণব পাল

অভিনয়ঃ চিরঞ্জিত চক্রবর্তী, জয়া এহসান, সুব্রত দত্ত, বাদশা মৈত্র, রজতাভ দত্ত এবং আরও অনেকে

 

 

জয়া আহসান অভিনীত সাইকো থ্রিলারধর্মী ‘বৃষ্টি তোমাকে দিলাম’ গত সপ্তাহে রিলিজ করল, তবে খুব একটা সফলতা পায়নি কলকাতায়। প্রথম সপ্তাহে ৩২টি সিনেমাহলে ছবিটি রিলিজ করে। দ্বিতীয় সপ্তাহে সেই সংখ্যা কমে মাত্র ১২টিতে নেমে এসেছে।

‘বৃষ্টি তোমাকে দিলাম’ পরিচালনা করেছেন অর্ণব পাল। বৃষ্টি নিয়ে বাঙালির যে ফ্যান্টাসিতে ভোগে এই ছবি থেকে তেমন কিছু আশা না করাই ভাল। মানব মনের অন্ধকার দিক পৃথিবীর সব ভাষার ছবিতেই ফিরে এসেছে বার বার। বহু বিখ্যাত ছবি আছে এই বিষয়টিকে কেন্দ্র করে। অনেক বার ব্যবহার হয়েছে বলেই প্রকাশ-রীতিতে বৈচিত্র একান্ত আবশ্যক ছিল। সেই প্রত্যাশা পূরণ করতে ব্যর্থ হয়েছেন পরিচালক।

 

ছবিতে জয়া আহসানের নাম বৃষ্টি। গল্পটি জয়া এহসানকে নিয়ে।মাল্টিপল পার্সোনালিটি ডিজঅর্ডারে ভোগা এক নারী।  ছোট থেকেই তার জীবন কাটে ভয় নিয়ে। মৃত্যু ভয় তাড়া করে বেড়ায় তাকে। কেন সে ভয় পায় সেটা জানা যায় ছবির একদম শেষ দিকে। যা দেখে বোঝাই যাবে কিশোর মনে ভয় ঢুকে যাওয়ার গল্পটা বড্ড বেশি চেনা। বৃষ্টির সর্বক্ষণের সঙ্গী কল্পনা। যে মানুষ তার কাছে নেই, যার অস্তিত্বই নেই, তাদের দেখতে পায় বৃষ্টি। তাদের সাথে কথা বলতে পারে সে.মানবিক সব কাজই করতে পারে। কিন্তু পরিচালকের ভুল আদতে যে সেসব চরিতত্রের কোনও অস্তিত্ব নেই সেটা দর্শকদের থেকে লুকিয়ে রাখার তেমন কোনও চেষ্টা তিনি করেননি। এখানেই মার খেয়েছে ছবিটা।তাছাড়া গল্পের মধ্যে নতুনত্ব কিছু নেই। গল্পের প্রথম থেকে শেষ সবটাই চর্বিত চর্বণ।

একটি চরিত্রকে ঘিরে ছবিটি তাই জয়া ছাড়া সুব্রত দত্ত থেকে শুরু করে বাদশা মৈত্র বা চিরঞ্জিত চক্রবর্তী এবং অন্যদের অভিনয় আলাদা করে মনে রেখাপাত করে না। ছবির যে টুকু যা পাওয়ার সেটা হল জয়ার অভিনয়। এ ছাড়া রজতাভ দত্তর অভিনয়ও ভাল লাগে। অল্প সময়ের উপস্থিতি হলেও রাজেশ শর্মার অভিনয় মনে রাখার মতন।

 

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত