তিনটি কবিতা

অঙ্গুরীয়
যে গানের স্বরলিপি নেই
আছে শুধু ই বিস্তার
মীড় ও গমক, কড়ি ও কোমল
এ ওর আঙুল ছুঁয়ে খেলা করে
সেই গান আমার বড় প্রিয়,
বিপুল  জলরাশি
জলের মৃদঙ্গে লেখা নাম
হৃদি মাঝে বেজে ওঠা তীব্র প্রদাহ
সে আঘাত একান্তই  স্বীয়,
শিংশপা গাছের নীচে অহং রেখেছি
শিরস্ত্রাণ রেখেছি
নিরায়ুধ
আছে  শুধু   বিষে  নীল এই অঙ্গুরীয়।
বিষ
আলোর আড়ালে যা আছে তাই থাক অদৃশ্য অতীত
মনের বৃতিতে রাখি প্রেম  সে আমার অন্ধ নিশীথ
যাপনের গন্ধে  সুবাস ,ঠোঁটে  ঠোঁট দহনের ই ঘাম
আলো  কালো এক হল, নাভিমূলে বোধি রাখলাম।
আয়ু জল টলমল , সাক্ষী থাক স্মৃতি  অহর্নিশ
স্বৈরী আঙুল আঁকে  মধুরেখা,মধু নয় বিষ সে তো বিষ!
নীলকন্ঠ
কত টা ভালোবাসলে সারারাত চৌরাশীয়া বাঁশী
কতটা গভীর হলে প্রেম
ঠান্ডা গাড়ির কাঁচে ফ্রীজড্ হয়ে যায়
কতটা অভিমান জমা হলে
বিপদসীমা পার হয়ে জল প্লাবন
ছিঁড়ে দেয় নোঙরের   দীর্ঘ দড়ির টান
নিভন্ত  চিতাকাঠ হয়ে পড়ে থাকে  ক্লান্ত স্মৃতি
সাপের  চেরা জিভের মত ভয় দেখায়
পুরোনো কথার হলাহল
বলো ,আর কত টা বিষ জমা হলে
             এ হৃদয় নীলকন্ঠ হয়ে যায় …

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত