ভারতের সাধারণ নির্বাচনের জানা অজানা তথ্য

Reading Time: 2 minutes রবিবার তফসিল ঘোষনার মধ্য দিয়ে ভারতের সাধারণ নির্বাচনের শঙ্খ বেজে গেছে। জনগণের জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটবে ২৩ মে,২০১৯। ৫৪৩ আসনের লোকসভায় (সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য প্রয়োজন ২৭২ আসন) এবার ভোট হবে ১১,১৮,২৩ ও ২৯ এপ্রিল এবং ৬,১২ ও ১৯শে মে। মোট সাত ধাপে। কিছু রাজ্যে ভোট হবে কয়েক ধাপে। ভারতের প্রথম নির্বাচন হয়েছিলো ১৯৫১-৫২ সালে এবং সেটি শেষ করতে সময় লেগেছিলো তিন মাস। ১৯৬২ থেকে ৮৯ সালের মধ্যকার নির্বাচনগুলোতে সময় লেগেছিলো ৪-১০দিন। সবচেয়ে কম চারদিন সময় লেগেছিলো ১৯৮০ সালের নির্বাচনে। ৭দিনে প্রায় ৯০ কোটি ভোটার এবারের নির্বাচনে ভোট দেয়ার সুযোগ পাবেন এবং এজন্য ভোট কেন্দ্র থাকবে দশ লাখেরও বেশি। ভারতের ভোটার সংখ্যা যৌথভাবে ইউরোপ ও অস্ট্রেলিয়ার মোট জনসংখ্যার বেশি। ২০১৪ সালের নির্বাচনে ৬৬% ভোটার ভোট দিয়েছিলো এবং ৪৬৪টি দলের ৮ হাজার ২৫০ প্রার্থী সে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলো। ভারতীয় একটি সংস্থার হিসেবে ২০১৪ সালের নির্বাচনে দল ও প্রার্থীরা ব্যয় করেছিলো প্রায় ৫ বিলিয়ন ডলার। ভারতের নির্বাচনের অংশ নেয়া দলগুলোকে তাদের আয়ের উৎস প্রকাশ করতে হয়। গত বছর মোদী সরকার নির্বাচনী বন্ড ছাড়ে যা ব্যবসায়ী ও অন্য ব্যক্তিদের পরিচয় গোপন রেখে চাঁদা দেয়ার সুযোগ করে দেয়। দাতারা ইতোমধ্যেই ১৫০ মিলিয়ন ডলার এই বন্ডের মাধ্যমে দিয়েছে এবং খবর অনুযায়ী এর সিংহভাগই গেছে বিজেপির কাছে। ২০১৪ সালের নির্বাচনে নারী ও পুরুষের ভোটারের ব্যবধান ছিলো খুব কম।নারীদের ভোট দেয়ার হার ছিলো ৬৫.৩%। আর পুরুষের ছিলো ৬৭.১%। নোট বাতিল,জাতীয়তাবাদের মত প্রসঙ্গ বিজেপি কে ঘিরে ধরলেও ২০১৪ সালে নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বেই বিজেপি ২৮২টি আসনে জিতে নির্বাচনে বিশাল জয় পেয়েছিলো। সেটিই ছিলো প্রথমবারের মতো বিজেপির নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়া। ১৩৩ বছরের পুরনো রাজনৈতিক দল কংগ্রেস ২০১৪ সালের নির্বাচনে শোচনীয় হার মানে। মাত্র ৪৪টি আসন পেয়েছিলো তারা। তাদের নজর উত্তরপ্রদেশের দিকে। প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকে দিয়ে সেই চমক দিতে চাইছে কংগ্রেস। কেননা দলগুলো জানে,উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্য উত্তর প্রদেশ ভারতীয় জাতীয় রাজনীতিতেও বেশ প্রভাবশালী। এখান থেকে ৮০ জন যাবেন ভারতের পার্লামেন্টে। আবার ভারতে সামাজিকভাবে সবচেয়ে বিভক্ত রাজ্যও এটি। ২০১৪ সালে বিজেপি ৭১ আসনে জিতেছিলো। তবে এ রাজ্যে এবার এক হয়েছে দু প্রতিদ্বন্দ্বী মায়াবতী ও অখিলেশ যাদব।      

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

You may use these HTML tags and attributes:

<a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>