সব ধরনের বই পড়িঃ নেওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকী

জন্ম: ১৯ মে, ১৯৭৪
জন্মস্থান: উত্তর প্রদেশ, ভারত
পেশা: অভিনেতা

প্রথমবারের মতো ওয়েবসিরিজে অভিনয় করলেন। সেক্রেড গেমসের শুটিং কেমন হয়েছে?
খুব ভালো অভিজ্ঞতা ছিল।একজন অভিনেতা হিসেবে এটা আমার কাছে পুরোপুরিই একটি চ্যালেঞ্জের মতো। গনেশ গাইতোঁড়ে খুবই জটিল একটি চরিত্র। আর শুটিংয়ের নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে চরিত্রটিকে জীবন্ত করা ছিল প্রকৃত চ্যালেঞ্জের। আমি দুই থেকে তিন মাস ধারাবাহিক শুটিং করেছি। টানা শিডিউল ছিল। তবে টানা শুটিংয়ের একটা সুবিধা ছিল যে, আপনি চরিত্রের মধ্যে একদম ডুবে যেতে পারতেন। একজন অভিনেতা হিসেবে আমি সিরিজটিতে অভিনয় করে ভালো সময় কাটিয়েছি।
গাইতোঁড়ের চরিত্রটি খুবই জটিল ছিল। কীভাবে এটি রপ্ত করলেন?
আমি ও আমার পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপ অনেক দূরে চলে যেতাম। এটা একটা বড় সুবিধা যে, পরিচালক ও আমার মধ্যে ব্যক্তিগতভাবেই দারুণ সম্পর্ক। ফলে নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়ার মধ্যেই চরিত্রটি খুব সহজে তৈরি হয়েছে।
এটিতো বিক্রম চন্দ্রর উপন্যাস অবলম্বনে তৈরি। আপনি কি বইটি পড়েছেন? অভিনয়ে প্রস্তুতি নিতে কতটা সাহায্য করেছে?
আমি শুটিংয়ের সময় বইটি পড়েছি। গাইতোঁড়ের চরিত্রে প্রচুর বাঁক আছে। বই পড়ার সুবিধা হলো চরিত্র সম্পর্কে বিশদ জানা যায়। আমি যদি শুধু পাণ্ডুলিপি পড়ে অভিনয় করতাম তাহলে এতটুকুও করতে পারতাম না।

কোন ধরনের বই পড়তে পছন্দ করেন?

সব ধরনের বই পড়ি। বিশেষ করে যে সব বইগুলোতে বিষয় নিয়ে খুব বিশদ বর্ণনা থাকে।যেখানে আপনি চরিত্রটির দুই দিক নিয়ে পড়তে ও অনুভব করতে পারেন।এখন পর্যন্ত আপনার কাছে সেরা রোমাঞ্চকর সিনেমা কী?
আমার কাছে সেরা রোমাঞ্চকর সিনেমা রমন রাঘব।
 
গাইতোঁড়ে তে ফিরে আসি। চরিত্রটিকে বইয়ের পাতা থেকে জীবন্ত করলেন কীভাবে?
বই থেকে পুরোপুরি চরিত্রটিকে নিয়ে আসাটা আসলে চ্যালেঞ্জ ছিল না। কারণ চরিত্রটি জীবন্ত করতে হলে বই থেকে আপনি চরিত্রটির প্রত্যেকটি বিষয় বিশদভাবে তুলে আনতে পারবেন না। আপনি শুধু চরিত্রটির নির্যাস নিতে পারেন।
বদলাপুর সিনেমার নেতিবাচক চরিত্র থেকে কতটা অন্যরকম গাইতোঁড়ে?
বদলাপুরের চরিত্রটিকে আমি কখনোই নেতিবাচক বলিনি। সে খুবই সাধারণ একজন মানুষ। সে ভুল করে হত্যা করার সিদ্ধান্ত নেয়। এটা তার পাপ নেয়। পরে সে যখন তাঁর পাপ বুঝতে পারে সে ভালো হতে চায়। এটা গাইতোঁড়ের থেকে একেবারেই আলাদা।
একজন অভিনেতা হিসেবে আপনি নানা ধরনের চরিত্র করেছেন। নানা মাত্রার চরিত্রে নিজেকে ধাতস্থ করেন কীভাবে?
একজন অভিনেতার জন্য এটা চ্যালেঞ্জের নয়। এ কারণে আমি চলচ্চিত্র স্কুলকে ধন্যবাদ জানাই। সেখানে আমরা শিখেছি কী করে একটি চরিত্রের ভিতর ঢুকতে হয় আবার বের হতে হয়। সেটা বলিউডের চরিত্র হোক কিংবা শেক্সপিয়রের চরিত্র হোক, দুই ধরনের চরিত্র করতেই আমাদের দক্ষতা আছে।আপনি নেটফ্লিক্স দেখেন? আপনার প্রিয় সিরিজ কী?
আমি প্রায় সব সিরিজই দেখি। আমার প্রিয় ‘নার্কোস’।

সাক্ষাৎকার: কিরণ ডিসুজা
সূত্র: মাসালা ডট কম

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত