ভারতীয় জাতি ভেদ প্রথার ইতিহাস

(১) বৈদিক যুগ : আর্যরা প্রথম দিকে যাযাবর ছিল । পরে তারা আগুন লাগিয়ে জঙ্গল পরিষ্কার করে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে থাকে। ক্রমশ তারা কৃষিকাজ করতে শিখে । প্রথমের দিকে ব্যক্তিগত উদ্যোগ বলে কিছু ছিল না । সব কিছু ছিল যৌথ । এই সময় জাতিভেদ প্রথা ছিল না । কিন্তু যখন আর্যরা অনার্যদের সংস্পর্শে আসে তখন থেকেই সমাজে ‘দেব’ ও ‘অসুর’ অথবা ‘আর্য’ এবং ‘দাস’- এই দুটি বর্ণের উদ্ভব ঘটে । কৃষ্ণবর্ণ বা অনার্যদের আর্য সমাজে অন্তরর্ভুক্ত করা হয় । কিন্তু শ্বেতবর্ণ আর্যদের থেকে তারা পৃথক থাকত । এরপর কৃষিকার্যের প্রসারের ফলে জীবনযাত্রা অনেক সহজ ও সরল হয়ে পড়ে । কৃষিকার্যে লোহার ব্যবহারের জন্য উৎপাদন বৃদ্ধি পায়, তখন থেকে যৌথ জীবনযাত্রার প্রয়োজনীয়তা ক্রমশ কমতে থাকে । আর্যরা তিনটি ভাগে বিভক্ত হয়ে যায় । যারা কৃষিকাজ, পশুপালন ও ব্যবসাবাণিজ্য নিয়ে রইল তারা ‘বৈশ্য’ নামে পরিচিত হয় । উদবৃত্ত সম্পদ ও উৎপাদন নিয়োজিত হয় দুটি নতুন বর্ণ অর্থাৎ ব্রাহ্মণ এবং ক্ষত্রিয়দের ভরণপোষণের জন্য । এই ভেদের ভিত্তি কিন্তু গাত্রবর্ণ ছিল না, ছিল পেশাগত । ব্রাহ্মণরা বেদপাঠ, যাগযজ্ঞ, আরাধনা ইত্যাদি নিয়ে থাকত । ক্ষত্রিয়দের কাজ ছিল নিরাপত্তা বিধান ও প্রশাসন । এই তিন বিভাগের নীচে ছিল শূদ্র বা দাস । এইভাবে আর্যসমাজ চারটি বর্ণে বিভক্ত হয়ে যায়। প্রথম দিকে এই বর্ণ প্রথা বংশানুক্রমিক ছিল না । কর্মের ভিত্তিতে বর্ণ স্থির হত । বৈদিক সাহিত্যে উল্লিখিত হয়েছিল যে, বিশ্বামিত্র জন্মসূত্রে ক্ষত্রিয় হলেও বিদ্যাচর্চায় উৎকর্ষতার জন্য ব্রাহ্মণ রূপে পরিগণিত হন । অনুরূপ ভাবে ব্রাহ্মণও ক্ষত্রিয় হতে পারতেন । বৈশ্য ও শূদ্ররাও প্রতিভাবলে তাদের অবস্থার উন্নতি ঘটাতে পারত ।

ব্যক্তিগত উদ্যোগের ফলে ব্যক্তি সম্পত্তির উদ্ভব হয় । যে-কোনো মানুষ দাস ও বলদের সাহায্যে জমি পরিস্কার করে তার মালিক হতে পারত । শিল্পকর্মে তখনও যৌথ উদ্যোগ ছিল । প্রাপ্ত আয় প্রত্যেকের মধ্যে ভাগ করে নেওয়া হত । এইসব পরিবর্তনের ফলে আর্যদের উপজাতি জীবন বা বিশ পরিবর্তিত হয় রাষ্ট্রে । বিশপতির স্থান নেয় ভূপতি । রাষ্ট্র ব্যক্তিসম্পত্তি রক্ষার দায়িত্ব গ্রহণ করে । সেই সঙ্গে রাষ্ট্র দাবি করে ব্যক্তিগত আয়ের একটি অংশ বা ভাগ । পরিবর্তিত এই পরিস্থিতি ও জটিলতা থেকে বর্ণপ্রথা জাতিভেদ প্রথায় রূপান্তরিত হয় । পরবর্তী বৈদিক যুগে তাই আমরা দেখি বৃত্তি ভিত্তিক বিভাগের বদলে সমাজ বিভক্ত হচ্ছে জন্মের ভিত্তিতে এবং বিবাহ ও সামাজিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে আরোপিত হয়েছে নানা বিধিনিষেধ । এই সময়ে সমাজে ব্রাহ্মণ ও ক্ষত্রিয়ের প্রাধান্য সুপ্রতিষ্টিত হয় । সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে তারা কিছু লোভনীয় সুযোগসুবিধার অধিকারী হয়ে সুবাধাবাদী শ্রেণিতে উন্নীত হয় । যেমন,অনেক ব্রাহ্মণ নিষ্কর জমি বা ব্রহ্মদেয় সম্পত্তি লাভ করে । আবার অনেক ব্রাহ্মণ শিক্ষা বা বিদ্যাচর্চা ও ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানের বদলে দাস ও বেতনভুক কৃষি শ্রমিকদের মাধ্যমে জমিজমা চাষ করে প্রচুর বিত্তের অধিকারী হয় । রাজনৈতিক ক্ষমতার বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে ক্ষত্রিয়দেরও মর্যাদা ও প্রাধান্য বৃদ্ধি পায়। ব্রাহ্মণ বা ক্ষত্রিয় কেউই সরাসরি উৎপাদনের সঙ্গে যুক্ত ছিল না । এই উৎপাদনের সঙ্গে বৈশ্যরা সরাসরি যুক্ত ছিল । কিন্তু তাদের সামাজিক মর্যাদা ছিল না । অন্যদিকে তদের উপর রাষ্ট্রের দাবি ছিল অত্যাধিক । শূদ্রদের অবস্থা ছিল সবচেয়ে করুণ । তবে ক্ষমতা ও যোগ্যতা থাকলে তারাও যে নিজেদের অবস্থার উন্নতি করতে পারে, এমনকি ক্ষত্রিয়দের সমপর্যায়ভুক্ত হতে পারে, তার প্রমাণ শূদ্র বংশীয় রাজা মহাপদ্ম নন্দ ।

(২) খ্রিস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতক: খ্রিস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতকে ক্ষত্রিয়দের সামাজিক মর্যাদা ও প্রতিপত্তি উভয়ই বৃদ্ধি পায়, বিশেষত পূর্ব ভারতে । তাঁরা এমনকি ধর্ম আন্দলনেরও নেতৃত্ব দিতেন । মহাবীর ও সিদ্ধার্থ উভয়েরই জন্ম ক্ষত্রিয় বংশে । যুদ্ধবিগ্রহ ও প্রশাসনের সঙ্গে যুক্ত থাকলেও অনেক ক্ষত্রিয় চাষবাস, পশুপালন, ব্যাবসাবাণিজ্য, ইত্যাদি নিয়েও থাকত । বেদ ও শাস্ত্রজ্ঞ ক্ষত্রিয়ও বিরল ছিলনা । যাগযজ্ঞ ইত্যাদির গুরুত্ব হ্রাস পাওয়ায় ব্রাহ্মণরা কিছুটা অসুবিধায় পড়ে । পৌরহিত্য ও অধ্যাপনা তাদের মূল উপজীবিকা হলেও অনেকেই তা দিয়ে সংসার চালাতে পারত না । ফলে ক্ষত্রিয় ও বৈশ্য বৃত্তি যাতে তারা গ্রহণ করতে পারে সেজন্য গৌতম, বিশিষ্ঠ, বৌধায়ন প্রভৃতিরা সেরকম নির্দেশ দিয়েছেন । তবে সব পেশায় তাদের অধিকার ছিল না । এই সময় বহু সৎ, গুণবান, চরিত্রবান ও পণ্ডিত ব্রাহ্মণ যেমন ছিলেন, তেমনই বহু অশিক্ষিত, লোভী ও সংকীর্ণচেতা ব্রাহ্মণও ছিলেন । অন্যদের তুলনায় ব্রাহ্মণরা বেশি সু্যোগ-সুবিধা পেত কিনা, বলা কঠিন; কারণ ব্রাহ্মণ্য ও বৌদ্ধ সূত্রে পরষ্পরবিরোধী তথ্য পাওয়া যায় । এই সময় বৈশ্যদের গুরুত্ব বৃদ্ধি পেয়েছিল । তাদের বিত্ত ও সম্পদ পর্যাপ্ত থাকলেও অনেকে তা জনকল্যাণে ব্যয় করত । ব্রাহ্মণ ও ক্ষত্রিয়দের মতো তাদেরও দ্বিজ বলা হত । শূদ্রদের বেশিরভাগ অনার্য হলেও কোনো কোনো আর্যও আর্থিক দুরাবস্থা ও অবনতির জন্য শূদ্রের স্তরে নেমে এসে ছিল। শূদ্রদের বেদ পাঠ ও বেদবাক্য শ্রবণ নিষিদ্ধ হলেও অল্পসংখ্যক শূদ্র শাস্ত্রজ্ঞ ছিলেন বলে জানা যায়। ধোপা, কামার, কুমোর, চামার, তাঁতি, চন্ডাল প্রভৃতি শ্রেণির মানুষ শূদ্র সম্প্রদায়ভুক্ত ছিল । এদের মধ্যে চন্ডালদের অবস্থা খুব খারাপ ছিল । মনুষ্য সম্প্রদায়ে তাদের স্থান সবার নীচে বলে মনু উল্লেখ করেছেন । তাদের ছোঁয়া লাগলে বা তাদের দিকে তাকালেও তা পাপ বলে মনে করা হত । এক বর্ণের সঙ্গে অন্য বর্ণের বিবাহ নিষিদ্ধ হলেও তা যে একদম হত না, তা কিন্তু নয় । এর ফলে বর্ণ সংকর জাতির উদ্ভব হয়ে ছিল । চন্ডালরা ছিল এর বড় উদাহরণ ।

(৩) মৌর্য যুগ: কৌটিল্যের অর্থশাস্ত্র ও মেগাস্থিনিসের বিবরণ থেকে মৌর্য যুগে বর্ণভিত্তিক সামাজিক জীবন ও জাতিভেদ প্রথার বিবরণ পাওয়া যায় । অর্থশাস্ত্রে বেশ কিছু সংকর জাতির উল্লেখ আছে । অসবর্ণ বিবাহের ফলে শূদ্ররা কিছু সামাজিক অধিকার লাভ করেছিল । অনুলোম (উচ্চবর্ণের পুরুষের সঙ্গে নিম্নবর্ণের নারীর বিবাহ) ও প্রতিলোম (নিম্নবর্ণের পুরুষের সঙ্গে উচ্চবর্ণের নারীর বিবাহ) বিবাহ প্রমাণ করে যে, অসবর্ণ বিবাহের প্রচলন ছিল । শাস্ত্রসন্মত বিবাহ হত একই বর্ণের ভিতর, যদিও গোত্র হত আলাদা । এই সময় কয়েকটি বৃত্তিভিত্তিক জাতির কথা আমরা জানতে পারি, যেমন- গোয়ালা, পশম শিল্পী, বেত শিল্পী, মণিকার, জ্যোতিষী, চিকিৎসক, নাপিত, জেলে, নট, নর্তক, গায়ক, বাদক, সৌভিক (ঐন্দ্রজালিক), চারণ ইত্যাদি । মেগাস্থিনিস ভারতের মানুষকে সাতটি জাতিতে বিভক্ত করেছেন, যথা- (১) দার্শনিক, (২) কৃষক, (৩) শিকারি ও পশুপালক, (৪) কারিগর, (৫) সৈনিক, (৬) পরিদর্শক বা গুপ্তচর এবং (৭) মন্ত্রণাদাতা । দার্শনিকরা ছিল সমাজের শীর্ষে । অন্যদিকে কৃষকেরা ছিল সংখ্যাগরিষ্ঠ । সৈনিকদের স্থান ছিল তাদের পরেই । মেগাস্থিনিস জাতি বৈষম্যের তীব্রতা লক্ষ করেছেন । এক জাতি অন্য জাতির পেশা গ্রহণ করতে পারত না, এবং তাদের মধ্যে বৈবাহিক সম্বন্ধও নিষিদ্ধ ছিল । মেগাস্থিনিসের এই জাতি বিভাগ ছিল কর্ম ও পেশা ভিত্তিক । তাঁর বর্ণনায় ভারতের বর্ণপ্রথার প্রতিফলন ঘটেনি ।

(৪) গুপ্ত ও গুপ্তোত্তর যুগ: গুপ্ত ও তার পরবর্তী যুগে পেশা বা বৃত্তি পরিবর্তনের সুযোগ ছিল । পুরোহিত ও কারিগর শ্রেণীর মানুষ অস্ত্রশস্ত্র ধারণ করত এবং সৈনিকরাও ব্যবসাবাণিজ্য করত । এই সময় অসবর্ণ বিবাহ অপ্রচলিত ছিল না । তবে ব্যাপক হারে ভূমিদান থেকে বোঝা যায় যে, এই সময় ব্রাহ্মণদের প্রাধান্য অখুণ্ণ ছিল । গুপ্ত রাজারা বৈশ্য হলেও ব্রাহ্মণরা তাদের ক্ষত্রিয়ের মর্যাদা দিয়েছিল । ব্রাহ্মণরা এই সময় প্রচুর বিত্তের অধিকারী ছিল এবং অনেক সুযোগসুবিধা উপভোগ করত, যা নারদ তালিকাভুক্ত করেছেন তাঁর আইনবিধিতে । এই সময়ে জাতিগুলি বিভিন্ন শাখাপ্রশাখায় বিভক্ত হয়ে যায় । বিদেশিরা হিন্দু সমাজে অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় বিভিন্ন জাতি, বিশেষত ক্ষত্রিয়রূপে পরিগণিত হয় । বিভিন্ন উপজাতিও হিন্দু সমাজে ঠাঁই পায়। এই সময় শূদ্রদের অবস্থার উন্নতি হয়েছিল । তারা রামায়ণ, মহাভারত ও পুরাণ শোনার অধিকার পায় । ফা-হিয়েনের বিবরণ থেকে জানা যায় এই সময় চন্ডালদের সংখ্যা বেড়েছিল এবং অস্পৃশ্যদের মানুষ বলে গণ্য করা হত না ।

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত