কাজরী বসু’র তিনটি কবিতা

আজ ২১ অক্টোবর কবি কাজরী বসু’র জন্মতিথি। ইরাবতী পরিবার তাঁকে জানায় আন্তরিক শুভেচ্ছা ও নিরন্তর শুভকামনা।


 

মেঘমন

ভাটারা জোয়ার হলে 

জলেরও শঙ্খ লাগে

ষোড়শী রঙ ধরেছে

তুফানের জন্মদাগে

দেখেশুনে মেঘের চুলে

কে যেন লাগায় হেনা

তবুও সৃষ্টিছাড়া 

মেঘেদের মন বসেনা

ফোঁটাতে ইচ্ছামতী 

চেয়েছে ভাসান ঢঙে

টুপটুপ সবুজ থেকে

বদলেছে বেগনি রঙে

দুঃখকে পাল্টাবে তাই

ছোপানো থাকল জারি

স্নান করে মেলছে আকাশ

বুটিদার টাঙাইল শাড়ি

মাঠেরা তৈরি ছিল

শ্রাবণী  রংমিশেলে

আজও কি মেঘরা ভেজো

অসময়ে বৃষ্টি এলে?

বদল
যখন তোমার জাহাজ খেলায় নোঙর ফেলা
আমার তখন দুর্গা শুধু মাটির ঢেলা
কখন যেন বদলে গেল নোঙর ,মাটি
তোমায় দেখে দুর্গতিতে দরজা আঁটি…
পালটে গেল তোমার আমার দুষ্টুমিও
তাই বলে কি পালটে যাবে সেই তুমিও ?
আমার হাতে তাই রেখেছি রঙ আর তুলি
মাটির ছাঁদে মনের ঘরেই কুমোরটুলি।
রঙ লাগানো চলতে থাকে ইচ্ছেমতো
মাটির ঢেলা এদিক ওদিক ইতস্তত….
গড়তে গিয়ে সমস্যাতে , তাও জানো কি !
ধরতে পারা সহজ হবে পালটানো কি?
তোমার এখন সাগর পারে নোঙর বাঁধা
আমার মাটির খাসমহলেই গোলকধাঁধা ।
আকাশ কখন নীলচে থেকে হলদেটে যে
বৃষ্টি ছাড়াও চোখের  পাতা কখন ভেজে
পালটে গেল আকাশ বাতাস আর ভূমিও
তাই বলে কি পালটে যাবে সেই তুমিও ?
আলোক
 
 
পলকে আমার চলমান কিছু বেহিসেবি চেনা ছক
মৃত বিস্মৃত ভাঙাচোরা এক  প্রাসাদের চিলছাদে
তোরঙ্গে তুলে রাখেনি কখনো মুঠোতে কপর্দক
তবু ঘুণধরা দেয়ালও হয়নি মুখরিত প্রতিবাদে।
সেখানে আনাচেকানাচে লুকোনো আলো ঠিকরোনো দিন
পারাণির কড়ি ভেবে সুগভীরে রেখেছি যদি তা জোটে
অঞ্জলি পেতে ততটুকু রাখি যতটুকু  সমীচীন
অবেলায় তবু বলেছ , এটুকু রেখেছিলে কেন মোটে !
বলিনি ,বলিনা ,ফাঁকে ফাঁকে আমি  দেখেছি উপ্ত বীজ
না থাকে না থাক খাঁজে খাঁজে আলো,সে আলোক মনসিজ।

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত