এবার যেভাবে বদলে যাবে কাশ্মীর

ভারতের সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপের মধ্য দিয়ে এতদিন বিশেষ মর্যাদায় থাকার জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের সাথে ভারতের বাকি অংশের জটিল সম্পর্কের ধরণা সম্পূর্ণভাবে বদলে দেয়া হয়েছে। গত সাত দশক ধরে এই ৩৭০ অনুচ্ছেদের সুবাদে এই রাজ্যটি ভারতের অন্যান্য রাজ্যের চেয়ে বেশি স্বায়ত্বশাসন ভোগ করতো। কিন্তু এখন থেকে সেটা বাতিল হয়ে গেলো।

কিন্তু প্রশ্ন হলো, তাহলে এবার কাশ্মীর কীভাবে বদলে যাবে? ভারতের সংবিধান বিশেষজ্ঞ কুমার মিহির বলেন, কাশ্মীরের পুনর্গঠনের প্রস্তাবগুলো এখন সংসদের উভয় কক্ষের মধ্য দিয়ে যেতে হবে। এর আগে সংবিধানের ৩৫-এ অনুচ্ছেদের সুবাদে জম্মু ও কাশ্মীরে যারা ‘স্থায়ী বাসিন্দা’ ছিলেন শুধু তারাই সেখানে জমিজমার মালিক হতে পারতেন। এখন যে কেউ ঐ রাজ্যে গিয়ে জমি কিনতে পারবে।

এর আগে কাশ্মীরের স্থায়ী বাসিন্দাদের জন্য রাজ্য সরকারের চাকরিগুলো নিশ্চিত করা ছিল। এখন ভারতের অন্যান্য রাজ্য থেকে প্রার্থীরা কাশ্মীরে সরকারি চাকরির জন্য আবেদন করতে পারবেন। অনুচ্ছেদ ৩৭০ অনুযায়ী এতদিন জম্মু ও কাশ্মীরের নিজস্ব সংবিধান ও একটি আলাদা পতাকার স্বাধীনতা দেয়া ছিল। ভারতের সংসদের উভয় কক্ষ ভবিষ্যতে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে। পররাষ্ট্র, অর্থ ও প্রতিরক্ষা বিষয়টি এতদিন কেন্দ্রীয় সরকারের হাতে ছিল। এখনও তাই থাকবে।

তিনি আরো বলেন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব এতদিন ছিল রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর হাতে। কিন্তু নতুন ব্যবস্থায় রাজ্যটিতে কেন্দ্রের সরাসরি শাসনের প্রস্তাব রাখা হয়েছে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রতিনিধি হিসেবে রাজ্যটি পরিচালনা করবেন একজন লেফটেন্যান্ট গভর্নর।

জম্মু ও কাশ্মীরের রাজ্য বিধানসভা গত কয়েক দশক ধরে কেন্দ্রের যেসব আইনের অনুমোদন করেছেন, সেগুলো এখন সরাসরি কার্যকর হবে। ভারতের সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তগুলো এখন এই রাজ্যের জন্য সরাসরিভাবে প্রযোজ্য হবে।

সংবিধান বিশেষজ্ঞ কুমার মিহির বলেন, এর বাইরে ভারতের দণ্ডবিধি কিংবা স্থানীয় রনবীর পিনাল কোড-এর ভবিষ্যৎ নিয়েও কেন্দ্র সরকার কিংবা সংসদকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রথা থাকবে কি না, সেটার প্রশ্নেও সিদ্ধান্ত নেবে ঐ দুটি প্রতিষ্ঠান।

সূত্র : বিবিসি।

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত