কৌশিক মিত্রের তিনটি কবিতা

মেঘের শৃঙ্গার

 

সাত সমুদ্র তের নদীর পার

জুরিখের রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাবে আমার মেম সাহেব

অস্ট্রিয়ার মেঘ রং পাল্টে থমকে দাঁড়াবে

তারাও বোধহয় পাগলীকে চেনে

তারাও  তাদের ছেলেবেলাকে খুঁজে পেয়েছে

তাদেরকে ও পারলে ক’টা বড় এলাচ দিও

 আলপ্স এর বরফে মাখা পাহাড়, তাকেও বলো সাইকেল আর বলের গল্প মুলতুবি রইল

বুড়ো আঙুলটা দেখিয়ে বোলো

একটু বোরোলিন লাগিয়ে দিতে। কৃঞ্চচূড়া গাছ হয়তো পাবে না ওখানে, পাইনের জঙ্গল,ওক, সাইপ্রাস-ওদের আমার কথা বোলো । বোলো আমাকে জোর করতে হয় না। 

ফিরে এসো। 

সেই আমাদের কিছু-না বলা সন্ধেগুলোর সাথে।  

 

 

একটি আশ্চর্য ঈ-মেল

বরফের দেশে কোয়েল পাখিরা

একদিন তোর কথা বলছিলো

মৌমাছিদের জন্য রেশম সুতোয় আবির পাঠালাম, ওদের খুঁজে পেলে একটু আদর দিস

একটাই খবর

তোকে খুব দেখতে ইচ্ছে করছে

সাতাশ বছর হয়ে গেল।

 

 

ঝরাপাতার দিন

ফুলের গন্ধ ও চলে যায়.. শুধু পরে থাকে শুকনো পাতা.. তাকে বই বন্ধ করে, পাতার মধ্যে জাপটে ধরে রাখতে হয়, তখন সেই পাতার ধমনীর মধ্যে বয়ে যাওয়া রক্ত.. যা জল হয়ে গেছে.. শুধু উপলব্ধি টুকু রয়ে যায়…

পাতা টা যেন জোরে চিৎকার করে বলছে.. আমাকে কেনো কেউ বুঝলো না.. আমিও তো শুধু খোলা বাতাস এ.. একটু হাত খুলে বাঁচতে চেয়েছিলাম..
কেউ তখন তার দিকে হাত বাড়ায়নি..

 

 

 

 

   

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত