| 23 মে 2024
Categories
কবিতা সাহিত্য

অনুপম মুখোপাধ্যায়ের একগুচ্ছ কবিতা

আনুমানিক পঠনকাল: 2 মিনিট
নৌকো
 
নৌকো এগিয়ে আসছে
১ আঁজলা জল নিয়ে দাঁড়িয়ে আছ তুমি
আমার মুখে ছুঁড়ে দেবে
শ্বাস একটু বন্ধ হয়ে আসবে
আনন্দের শ্বাস
প্রাতিষ্ঠানিক আবহাওয়া
আমাদের বিবাহ স্বীকার করে নেবে
 
 
 
 
 
 
অঙ্ক
 
পৃথিবীর শুরু আর শেষ এই তো চিরদিন
চিরদিনের জল দিয়ে পুকুর মাপা হচ্ছে
পৃথিবীর এপাশে সমুদ্র ওপাশে সমুদ্র
মধ্যিখানে ফেঁসে যাওয়া ১ ঝোড়ো জাহাজ
শূন্যে লাফিয়ে উঠছে টিয়া
ডানাখোলা গ্রামীণ বুকে খাঁচার ছায়া নেই
 
 
 
 
 
 
চন্দ্রায়ন
 
সত্যিকারের বিদেশ হল চাঁদ
তেমন ১টা দীর্ঘশ্বাস দাও আমাকে
যুবতীর চেয়ে গভীর
যুবকের চেয়ে লম্বা
নিজের চারপাশে ঘুরেও
আমি তোমার জ্যোৎস্না হয়ে আছি
 
 
 
 
 
পারভার্ট
 
মাকে ফ্রিজের মধ্যে রেখেছ চার বছর
প্রতিবেশীরা গন্ধ পায়নি
এই খবর দেখে
সেদ্ধ ডিমে কামড় বসালাম
 
 
 
বিকার
 
প্রথমে তো রোদ ছিল তারপরেও রোদ
তবে বৃষ্টি কখন হল
ছককাটা রোদের বিকার ছককাটা ছায়া
এখানে কেন আলোর চেয়ে মেঘে জোর দিলাম
জীবন রাখব জন্মদিনের বৃষ্টিভেজা ভোরে
হেলমেটে জোর রাখবো দুর্ঘটনার পরে
কেন
তুমি যখন ট্রেনে তখনই তো তুমুল বৃষ্টি
আমাকে অন্ধ করে দিচ্ছে
ক্ষতচিহ্নে জ্বরের চেয়ে জড়িয়ে নিচ্ছে
তোমাকে
 
 
 
 
 
গোলাপ কাহিনি
 
ফুটে উঠতে পারছি না
দুশ্চিন্তায় আছি
অনেক ঘুরে আমি সেই
গোলাপের বুকে এসে ঘুমে ঢলে পড়ছি
 

আরো পড়ুন: দুটো প্রেমের কবিতা । অনুপম মুখোপাধ্যায়


 

বাগান
 
যে জানলায় পর্দা নেই সেই জানলা কালো
তার সামনে গোলাপবাগান
গোলাপচূড়ার অন্ধকার
গোলাপগাছকে ঢাকতে পারে না
অনেক ফুলের বুক মাড়িয়ে হেঁটে আসা তুমি
তোমার বুকে গোলাপ থাকা ভাল
 
 
 
 
 
 
 
 
ভাঁজ
 
তারপর আমি তোমাকে ভাঁজ করে রাখলাম
ঘুমিয়ে পড়ো চন্দ্রমল্লিকার পাশে
চন্দ্রমল্লিকার চাঁদ নেই
মল্লিকা নেই
তোমার বুকেও তো নেই
আপেলের টঙ্কার
সন্ধে নামছে ট্রেন থামার জায়গায়
ট্রেনটাকে অন্ধকারই ভাঁজ করে রাখবে
 
 
 
পরীদের দেশ
 
পরীর পোশাককে কি পরীবেশ বলবে
কুলির চাকরি নিয়ে পাহাড়ে এসেছি
পরী বয়ে নিয়ে যাবো মজুরি পোষালে
ভাঙা পরী ছেঁড়া পরী
খুন হওয়া পরী
নেশার ছবি দেখে চোখ ঢাকছ তুমি
একমুঠো চোখ নিয়ে পেটভরে খাবো
 
 
 
 
 
ফসিল
 
একদিকে শুকনো মাটি অন্যদিকে কাদা হয়ে আছে
অনেক দূরে জীবনের হাড় হালকা হচ্ছে
ডাকবাংলোর পাশ দিয়ে ট্রেন চলে যায়
সেকালের ডাকবাংলো
একালের ট্রেন
ভুল করে হাওয়া আসে
রাস্তা ভুলে একটা পাখি জানালা দিয়ে ঢোকে
নদীর সময়ে
 
 
 
 
 
 
হাত
 
হাত রাখা আছে বেশ কিছু হাত
আলো নিভে গেলে
অন্ধকার গড়িয়ে পড়বে
আঙুল ছুঁয়ে ছুঁয়ে
শতাব্দির পর শতাব্দী
খেলা করবে কব্জিতে
 
 
 
 
 
 
 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: সর্বসত্ব সংরক্ষিত