প্রিয়াঙ্কাকে নিয়ে বলার আগে জানুন

।।অভিক রায়।।

‘প্রিয়াঙ্কা চোপড়া? হ্যা হ্যা হ্যা হ্যা ওটা কী ড্রেস পরেছে!’
‘প্রিয়াঙ্কা চোপড়া? হ্যা হ্যা হ্যা হ্যা ওটা চুল না পাখির বাসা!’
‘প্রিয়াঙ্কা চোপড়া? হ্যা হ্যা হ্যা হ্যা ওটা পাঁচ টাকার কানের দুল!’

প্রতিবছরের মতো এবারও মে মাসের প্রথম সোমবার, নিউ ইয়র্কের মেট্রোপলিটন মিউজিয়াম অফ আর্ট চত্ত্বরে একটা কস্টিউম পার্টির আসর বসেছিলো যার পোশাকি নাম হলো ‘মেট গালা’। এবার ‘হ্যা হ্যা হ্যা হ্যা’ করার আগে যেটা আপনাদের সর্বপ্রথম জানা দরকার সেটা হলো ‘কস্টিউম পার্টি’ কী? কস্টিউম পার্টি মানে ঝাকানাকা ড্রেস পরে, গলা অবধি মদ খেয়ে, ‘ডি.জে ওয়ালে বাবু’-র বিটে দেদার নাচানাচি করে, সেল্ফি তুলে, উবার চেপে বাড়ি ফিরে আসা নয়। কস্টিউম পার্টি মানে আপনাকে একটা থিম জানিয়ে দেওয়া হবে, সেই থিমের উপর ভিত্তি করে আপনাকে জামাকাপড় পরে (সে যত উদ্ভটই হোক!) কনফিডেন্সের সাথে সেই পার্টিতে উপস্থিত থাকতে হবে। এবার আসা যাক মেট গালা-র কথায়। এই কস্টিউম পার্টিতে প্রবেশ করার জন্য আপনাকে যে টিকিটটি কাটতে হবে তার দাম -$৩৫,০০০ মানে ভারতীয় মুদ্রায় ২৪,২৭,৯১৫ টাকা। এই টাকা দিয়ে শহর কলকাতায় একটা 2BHK ফ্ল্যাট দিব্যি নেমে যাবে। সাধে কী আর একে ইস্ট কোস্টের অস্কার বলে! তো এবছর এই পার্টিতে আমন্ত্রিত সারা বিশ্বের ৫৫০ জন তাবড় তাবড় সেলিব্রিটির মধ্যে জায়গা করে নিয়েছিলেন ভারতীয় দুই তনয়া। দীপিকা পাড়ুকোন ও প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। আপনাদের সমস্যা দ্বিতীয়জনকে নিয়ে। মানে প্রিয়াঙ্কা চোপড়াকে নিয়ে। যার ছবি শেয়ার করে, আপলোড করে তার উপরে ক্যাপশন লিখে হাসতে হাসতে একে অপরের গায়ে গড়িয়ে পড়ছেন। কস্টিউম পার্টির থিম নিয়ে খানিক আগে বলছিলাম। এবছর মেট গালার থিম ছিলো- “Camp: notes on fashion” যার ভিত্তি ছিলো ষাটের দশকে সুজান সন্ট্যাগ এর লেখা প্রবন্ধ ‘Notes on camp’
পার্টির থিম অনুযায়ী পোশাকে মূলত প্রকাশ পাওয়ার কথা ছিলো Pastiche, Artifice, Exaggeration, Parody, Humor এবং Theatricality এর মত বিষয়বস্তু।

সেখানে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া বেছে নেন অ্যালিস ইন ওয়ান্ডারল্যান্ডের ম্যাট হ্যাডার চরিত্রটিকে। অনেকটা তার মতনই সেজে তিনি উপস্থিত হন এই পার্টিতে। ও যেটা বলতে ভুলে গেছিলাম যে ডিজাইনার সংস্থা এই পোশাকটি প্রিয়াঙ্কা চোপড়াকে বানিয়ে দিয়েছেন তার নাম ‘Dior’ যার সবচেয়ে কমদামী সানগ্লাসের দাম কুড়ি হাজার টাকা। যাইহোক আসল কথা হলো কিছুদিন আগে ফেসবুকে একজন ভদ্রমহিলার ভিডিও ভাইরাল হয়েছিলো যাতে তিনি বলছিলেন- ‘মেয়েদের ছোট পোশাকই তাদের ধর্ষিত হওয়ার জন্য দায়ী।’ তখন আপনারাই এই ভিডিওটি শেয়ার করে হেব্বি খিস্তি করেছিলেন মহিলার মানসিকতাকে। কিন্তু আজ বিশ্বের অতবড় একটা প্রেস্টিজিয়াস ইভেন্টে ভারতবর্ষকে রিপ্রেজেন্ট করা এক মহিলার পোশাক ও সাজগোজ নিয়ে কিছু না জেনেই আপনারা যে ‘হ্যা হ্যা’ করতে করতে এই চূড়ান্ত বেলেল্লাপনাটা শুরু করেছেন, তারপর তো ওই ভদ্রমহিলার মানসিকতার সাথে আপনাদের মানসিকতার একফোঁটাও অমিল আমি খুঁজে পেলাম না। কেন? কারণ আপনারা এখনও কোনও মহিলাকে তার অ্যাচিভমেন্ট দিয়ে নয়, পোশাক ও সাজগোজ দিয়েই বিচার করেন।

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত