মোদিকে মালিয়ার তোপ

ভোটের ময়দানে ঋণখেলাপিদের নিয়েও আবর্তিত হচ্ছে রাজনীতি৷ অভিযোগ খোদ ঋণ খেলাপি মামলায় অভিযুক্ত বিজয় মালিয়ার৷ তাঁর নিশানায় বিজেপি৷

প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকার ঋণ খেলাপির অভিযোগ রয়েছে মালিয়ার বিরুদ্ধে৷ আপাতত তাঁর ঠিকানা লন্ডন৷ মালিয়ার প্রত্যর্পণে ব্রিটিশ আদালত সিলমোহর দিলেও তা চূড়ান্ত হয়নি৷ ফলে এখনও দেশে ফেরানো যায়নি তাঁকে৷ মালিয়ার অভিযোগ, তাঁর বিরুদ্ধে ঋণ খেলাপির ৯ হাজার কোটির অভিযোগ রয়েছে৷ কিন্তু ভারত সরকার মালিয়ার প্রায় ১৪ হাজার কোটির সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে ফেলেছে৷ খোদ প্রধানমন্ত্রী নাকি একথা স্বীকার করেছেন৷ মালিয়ার প্রশ্ন, সর্বোচ্চ নেতৃত্ব যখন স্বীকার করছেন একথা তখন বিজেপি কিভাবে আমাকে আক্রমণ করছে?

মালিয়া ট্যুইটারে এদিন লেখেন, ‘‘বলা হচ্ছে আমি পলাতক৷ ভোটের আগে এইসব বলে রাজনৈতিক ফায়দা তোলার চেষ্টা হচ্ছে৷ খোদ প্রধানমন্ত্রীই বলছেন আমার বিরুদ্ধে যে পরিমাণ ব্যাংক প্রতারণার অভিযোগ তার বেশি মূল্যের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে৷’’

সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে খবর, একটি বেসরকারী বৈদ্যুতিন সংবাদ মাধ্যমে ২৯ মার্চ প্রধানমন্ত্রী বলেছেন কোনও ঋণ খেলাপি-ই মুক্ত থাকতে পারবে না৷ উদাহরণ হিসাবে বিজয় মালিয়ার কথা তুলে ধরেণ প্রধানমন্ত্রী৷ সেখানে মোদী বলেছিলেন, ‘‘মালিয়ার বিরুদ্ধে ৯ হাজার কোটি টাকার অভিযোগ রয়েছে, কিন্তু ইতিমধ্যেই বিশ্বজুড়ে প্রায় ১৪ হাজার কোটির তাঁর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করেছে সরকার৷ সহজেই বোঝা যাচ্ছে এবিষয়ে কেন্দ্র কতটা তৎপর৷’’

প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্যকে হাতিয়ার করেই মালিয়ার দাবি, প্রধানমন্ত্রীই স্বীকার করছেন তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগের বেশি পরিমাণ মূল্যের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে৷ তাহলে এবার তাঁর বিরুদ্ধে সব অভিযোগ তুলে নেওয়া উচিত৷ বিজেপিরও চুপ করে যাওয়া উচিত৷

এর আগে, ২০১৬ সালে ঋণখেলাপি করে দেশ ছেড়ে লন্ডনে পালিয়ে যান বিজয় মালিয়া। এরপর ইংল্যান্ডের আদালতেও তাঁর বিরুদ্ধে মামলা হয়। তাঁকে আদালতে হাজিরাও দিতে হয়। এরই মধ্যে তাঁকে ভারতে প্রত্যর্পণের আবেদন জানানো হয়। অবশেষে মাস কয়েক আগেই ভারতের দাবি মেনে প্রত্যর্পণ মামলায় সিলমোহর দেয় ব্রিটিশ আদালত৷ তবে মালিয়া সেই রায়ের বিরোধীতা করে আবাদন করায় একও তা কার্যকর হয়নি৷

বিষয়টিকে নিজেদের সাফল্য বলে দাবি করে বিজেপি শাসিত কেন্দ্রীয় সরকার৷ যা নিয়ে শাসক বিরোধী তরজা তুঙ্গে ওঠে৷ ভোটের আগে এবার বিজয় মালিয়ার ট্যুইট ঘিরেই সেই তরজা অন্য মাত্রা পেতে পারে বলে মত রাজনৈতির পর্যবেক্ষকদের৷

সূত্রঃ কলকাতা২৪

 

 

 

 

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত