| 27 ফেব্রুয়ারি 2024
Categories
গদ্য সাহিত্য

টুকরো করে কাছি

আনুমানিক পঠনকাল: < 1 মিনিট

ঝড় উঠেছে। টুকরো টুকরো হয়ে ভেঙে পড়ছে সম্পর্ক। ভাঙনের শুরু। বিষাদের ঘূর্ণিপাক থেকে বাঁচতে খিল তুলে দিই দরজায়। বৃষ্টির তোড়ে ভেসে যাচ্ছে অনুরাগের ছোঁয়া, ভেসে যাচ্ছে শেষ খড়কুটোটুকু। সন্ধের পূরবীতে লাগে তান। দেখা হওয়া উচিত ছিল। কথা ছিল ভীষণ কান্নায় ভেসে যাওয়ার আগে বুকে মুখ ডুবিয়ে দেওয়ার। সর্বনাশের মতো হাওয়া বইছে। দরজা কপাট বুঝি ভাঙলো‌ এবার। ভাঙনের ডাক এত তীব্র করে কখনো বাজেনি কানে। বাজেনি গাছ-পাখি-আকাশের কান্নার কলতান।সক্কলে কাঁদছে দেখো।‌কান্না ছাপিয়ে গেল বড় রাস্তা, অ্যাক্রোপলিসের প্রিয় চোখে চোখ ডুবিয়ে বসার জায়গা , কান্না এখন‌ রুবির মোড়, বাইপাসের চেনা হোটেল।

কান্না এখন ঘুমের ঘোর, কান্না এখন বুকের ঝাঁপিয়ে পড়ার মনখারাপি বিকেল। বৃষ্টি বাড়লো, জানো। হাওয়ায় এখন আবির নেই , দীর্ঘশ্বাস।কার হাহাকার আছড়ে পড়ছে, তুমি শুনতে পাচ্ছো?
গানের খাতা ভিজে যাচ্ছে। ওই ভেসে গেল সব স্বরলিপি, বিকেলের অস্তরাগে আমার পিঠের উপরে তোলা বোলের সাথে হালকা গুনগুন।

“তোমায় ভালোবাসি” কতবার বলেছি, কতবার নক্সা বুনেছি অক্ষরের আলাপে। শুধু তোমার উত্তরের আশায় থেকে থেকে, মনখারাপ ঘোলা হতে হতে , কান্নার পাহাড় জমতে জমতে আজ সব দরজায় খিল।

বন্ধ কপাটে মাথা কুটছে বাতাস। “আমার নিশীথ রাতের বাদলধারা”।
মল্লিকাবনে প্রথম ধরা কলিটি টুপ করে ঝরে পড়লো। ঝরে পড়ছে এক আকাশ স্বপ্ন। তোমার স্মৃতির মধ্যে এত ভাঙনের কান্না নিয়ে ঘুমোতে পারবে তো?

 

 

One thought on “টুকরো করে কাছি

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: সর্বসত্ব সংরক্ষিত