প্রেম একদিন

ছেলেটি সেদিন একটি রিকোয়েস্ট পায়। গ্রহণ করে। এস এম এস করে স্বাগত। তারপর থেকে সপ্রতিভ মেয়েটির সঙ্গে কথা শুরু। আমি আপনার লেখার ফ্যান…।
ক্রমশ তাদের বন্ধুত্ব । সারাদিনে মেয়েটি অন্তত ত্রিশ বার খোঁজ নিত, কী করছো…।
ওরা কথায় কথায় ইনবক্স পেরিয়ে ফোনে চলে আসে। রাত জাগে। প্রেমের ভেতরে ডুবে থাকে। হানিমুনের প্ল্যানটাও করে নেয়। ওরা সমুদ্রে যাবে । একটা ডাব দুজনে বসে খাবে সমুদ্রসৈকতে। মেয়েটি বড়ো রোমান্টিক।
তাদের দ্যাখা হয়। চৈত্রের রোদ্দুরে হাতে হাত। মেয়েটির বিয়ে ঠিক। সে বলে ,বিয়েটা করছি না।
–কারণ?
–তোমাকে দেখার পর অন্য কাউকে ভাবতেই পারছি না।
আবার তাদের দ্যাখা হবার কথা। নির্দিষ্ট দিনে   মেয়েটি সকাল সকাল জানিয়ে দ্যায় আজ  আর দেখা হবে না।
–কেন?
–অসুবিধে আছে। 
–কবে দেখা হবে?
–জানি না।
তিনদিন মেয়েটি চুপ। কথা নেই। শেষে বলে ,আগামী সপ্তাহে বিয়ে ওই ছেলেকেই। ওদের ভিতর খুব ঝগড়া হয়। 
–বললে যে ওই ছেলেকে বিয়ে করবে না?
— সব কথা সবাইকে বোঝানো যায় না। বাড়ি থেকে জোর করেই…।
দিন পনেরো পর মেয়েটি বরের সঙ্গে নিজের ছবি পোস্ট করে ।ছেলেটি চমকে যায়। শুভেচ্ছা জানায় –দুজনেই ভালো থেকো।
একমাস পর মেয়েটির এস এম এস ,কেমন আছো?
–যেমন রেখেছো। তুমি…।
–খুব ভালো।
–হানিমুনে কোথায় যাচ্ছ ?
–দার্জিলিং যাবে ও বলেছে।
–তুমি?
–আমি কিছু বলিনি।
–সমুদ্রে যাবে না? 
–না। 
–কেন?
মেয়েটি চুপ করে থাকে। বলে, সমুদ্রেই তো ডুবে আছি।

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত