প্রমিতা ভৌমিকের গুচ্ছ কবিতা

আজ ২৬ অক্টোবর কবি প্রমিতা ভৌমিকের শুভ জন্মতিথি। ইরাবতী পরিবার তাঁকে জানায় শুভেচ্ছা ও নিরন্তর শুভকামনা।


 

তোমার উড়িয়ে দেওয়া চুম্বন

তোমার উড়িয়ে দেওয়া চুম্বন
পলাতক পাখির মতো খুঁজেছে আমায়
আর আমি ছড়িয়ে দিয়েছি সোনালি অসুখ

যন্ত্রণার পাশে এতো প্রলোভন
সন্ধের পাশে নিঃসঙ্গ নগর-

তোমার সন্ধে মানে ককটেল পার্টি,
তোমার সন্ধে মানে অলিপাব,
রেড ওয়াইন,মাংস-মাংস মাতাল শরীর

অন্ধকার লুট করছো আজ
আর তোমার ব্যস্ত বাইপাসের পাশে
নদী হয়ে বয়ে যাচ্ছি আমি

অলীক,তুমি জানবে না-
নদীর মতো নারীরও পা ছোঁয়া যায়।

 

 

নারীজন্ম

শ্বর আর তুমি খেলছো প্রশ্ন-উত্তরে –
খাদ্য-খাদক পিরামিড আঁকছো দুজনে মিলে,
তোমার মেদ-মজ্জা-মাংস ছিঁড়ে
শুষে নিচ্ছে এক পলাতক পুরুষ –
তার আপাদমস্তক লাম্পট্য তোমার চেনা
#
তুমি আর ঈশ্বর শুঁকে দেখছো মৃত মানুষের ঘ্রাণ –
চারপাশে উড়ে বেড়াচ্ছে পোড়া লোভ
আর তোমার শরীর ছেনে মূর্তি গড়ছে পলাতক
#
শেষবারের মতো তুমি অভিশাপ লিখে দিচ্ছো তাকে।

 

পাহাড়িয়া

বছর পেরিয়ে ফিরে আসা
পাহাড়ি প্রদেশে – আলো-অন্ধকার
হেলে পড়ছে পথরেখা ধরে,
হাতের ওপর হিম সন্ধ্যা,
সাদা পাতায় অক্ষর সেজে ওঠে

কফিঘরে ধোঁয়া উড়ছে;

পানশালায় লেখা হচ্ছে দীর্ঘকবিতা
ইচ্ছেগুলো ভেঙে-চুরে নীল হয়ে আসে,
মাত্রাবৃত্তে দুলে ওঠে চড়াই-উৎরাই –
ভয়,নেশা,পুরনো বিরহ ফেলে
দূরত্ব উড়িয়ে দিচ্ছে শীতের হাওয়া

এদিকে কাঁপা হাতে আমি
উৎসর্গপত্রে লিখে রাখছি
অপ্রেম, মধ্যরাত, নিরাপদ ঘুম।

 

তিন পঙক্তির কবিতা

 

হয়তো এভাবেও বেঁচে ওঠা যায়
চেনা মেঘ আর অচেনা আলোর দিকে চেয়ে,
তুমি তাকে আনমনে ফেরা বলে ডেকো

 

দূরত্বের গায়ে জিজ্ঞাসা চিহ্নের মতো
এক টুকরো অপেক্ষা লেগে আছে —
বৃষ্টি নামার আগে তাকে ছুঁয়েছি একবার

 

দিনটা সেদিন অন্য রকম ছিল —
কিছুটা মেঘ, কিছুটা আলো
আর তোমাকে ভুলে থাকা…

 

 

 

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত