পূর্বা মুখোপাধ্যায়ের কবিতাগুচ্ছ

১৪ মে কবি পূর্বা মুখোপাধ্যায়ের জন্মতিথি। ইরাবতী পরিবারের শুভেচ্ছা ও নিরন্তর শুভকামনা।

#

গাছে একটি প্রাণী আসিয়াছে।
প্রাণী? কোন প্রাণী?
কী জানি ! কী জানি !
প্রাণীটি কী রং?
লাল, উঁহু, হলুদ বরং
হলুদ কোথায়, ও তো সাদা
চোখে ছানি হল নাকি দাদা
ওটি গাঢ় নীল
কী খিটকেল! ওর সংগে মিল
দার্জিলিংবাসী কমলার।
তবে রে ! তবে রে !
তাক তেরে কেটে তাক তেরে
ফের রংবাজি?
এক্ষুনি স্বীকার কর পাজি
চামড়ার রং চেনা ছিল না সহজ কারবার

প্রাণীটি কি সামাজিক? তুলেছে কলার?

#

জখম থেকে রক্ত উঠে আসে।
রক্তে লিখি জখম-ছেঁড়া নাম।
বাধার থেকে বাধা খুলতে পারো যদি,
তোমায় চিনলাম।

তোমার জখম আমিও চিনিনি।
ধীরে দাঁড়াই। ঝুঁকছি… সংশয়…
রক্তভরা কুয়োয় ভেসে আছে ও কার মুখ?
আমার। আমার ভয়।

ভয়ের কেউ যমজ ছিল কি?
চেনামুখের ভীষণ বিকল্প?
জখমকে তাও নেশার ঝোঁকে আদর করে
চুষলাম। অল্প।

ঠিকানা বদল হল

এখন তোমার ঘরে আরব সাগর থেকে হাওয়া এসে মিতালি পাতাক।
বর্ষার নতুন মানে শিখে নাও, দূরে পড়ে থাক
চেনাশোনা অলিগলি, প্রিয় মুখ,সুখদুঃখঘোর।
বারান্দায় ঘেরা কোন অচেনা ঘরদোর
দ্রুত তোমাকে জড়াক।
শুভ হোক… শুভ… শুভ… শুভ…
জানি চোখ নিভে আসছে, একহাতে দুর্বল সংগী,অন্য হাতে অসুস্থ সন্তান
রক্তে চিনি নিয়ে তুমি কুটোপাতা, উড়ে যাচ্ছ অজানা শহরে
আর ছুঁতে পাবো না তোমায়? বলো?
আদরের ডাকে মন চির নিরুপায়…
ফিরবে না? ফিরবে না? আর ফিরবে না?
ছিল না নাড়ীর টান, কী যে ছিল কখনো বুঝিনি
কী ছিঁড়ে কে ফেলে গেলে এত রক্ত পড়ে…

উড়ে যাও কুটোপাতা সোনামণি, কল্যাণ… কল্যাণ…

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত