অসহায় হার বিরাটদের

জনি বেয়ারস্টো ও ডেভিড ওয়ার্নারের ব্যাটিং তাণ্ডবের পর মোহাম্মদ নবির বোলিংয়ে দাপুটে জয় পেয়েছে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। আইপিএলে নিজেদের ক্লাব ইতিহাসে রেকর্ড ১১৮ রানে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুকে হারিয়েছে তারা।

হায়দরাবাদের রাজীব গান্ধী আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাট করে হায়দরাবাদ। দুই ওপেনার বেয়ারস্টো ও ওয়ার্নারের ব্যাটিং ঝড়ে তারা করে ২ উইকেটে ২৩১ রান। ১৯.৫ ওভারে বেঙ্গালুরুকে ১১৩ রানে গুটিয়ে দেয় গতবারের ফাইনালিস্টরা।

বিশাল লক্ষ্য পেয়ে শুরু থেকে মারকুটে ব্যাটিংয়ের বিকল্প ছিল না বেঙ্গালুরুর সামনে। কিন্তু শুরুতেই ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে তারা। নবি প্রথম দুই ওভারে ৩ উইকেট তুলে নেন। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে পার্থিব প্যাটেলকে (১১) ফেরান আফগান স্পিনার। পরের ওভারে জোড়া আঘাতে শিমরন হেটমায়ার (৯) ও এবি ডি ভিলিয়ার্সকে (১) বিদায় করেন নবি।

নবির বোলিংয়ে ভেঙে পড়ে বেঙ্গালুরুর ব্যাটিং লাইন
২২ রানে প্রথম তিন ব্যাটসম্যানকে নবির কাছে হারায় বেঙ্গালুরু। এই বিপর্যয় ছিল আরও কিছুক্ষণ। মাত্র ৭.৩ ওভারে ৩৫ রানে তাদের ৬ উইকেট তুলে নেয় হায়দরাবাদ। কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমের সঙ্গে প্রয়াস রয় বর্মণের জুটিতে প্রতিরোধ গড়েছিল তারা। কিন্তু তাদের ৫১ রানের জুটি শুধু ব্যবধান কমানো ছাড়া আর কোনও অবদান রাখতে পারেনি। ইনিংস সেরা ৩৭ রান করেন ডি গ্র্যান্ডহোম।

৪ ওভারে মাত্র ১১ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন নবি। তিনটি পান সন্দীপ শর্মা, ৩.৫ ওভারে ১৯ রান খরচ করে।

মূলত বেয়ারস্টোর কাছেই হেরেছে বেঙ্গালুরু। হায়দরাবাদের ইংলিশ ওপেনারের একার রানই টপকে যেতে পারেনি তারা। এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান ১১৪ রান করেন। আইপিএলের রেকর্ড ১৮৫ রানের উদ্বোধনী জুটি গড়তে বেয়ারস্টোর সঙ্গে ছিলেন ওয়ার্নার। তিনি ১০০ রানে অপরাজিত ছিলেন দুজনের সেঞ্চুরিতে রেকর্ড রান করে স্বাগতিকরা।

টানা দ্বিতীয় জয়ে এক লাফে পাঁচ নম্বর থেকে শীর্ষে উঠে এসেছে হায়দরাবাদ। ৩ ম্যাচে ৪ পয়েন্ট তাদের। তিন ম্যাচে একটিও জয় নেই বেঙ্গালুরুর, তারা সবার শেষে।

ক্রিকইনফো

 

 

 

 

 

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত