| 14 এপ্রিল 2024
Categories
কবিতা সাহিত্য

যুগল কবিতা

আনুমানিক পঠনকাল: < 1 মিনিট
সন্ত্রাসবাদ
একমাত্র রিপ ভ্যান বোঝে সেই আতঙ্কের মানে,
কী হয় ফিরতে না পারলে আর ভেঙে যাওয়া ঘুমে।
গালিব কী দেখেছিলেন অন্ধকার ঝড়ে,
থ্যেঁতলে যাওয়া ডিম আগলান মা পাখির চোখের সন্ধ্যে জানে।
অভিধানে কেন যে খোঁজ রিফিউজির প্রতিনাম,
আয়নায় দাঁড়িয়ে দেখ,
কাতারে না দাঁড়াতে পেরে তোমার মাথার মেঘেরা কী অদ্ভুত ভবঘুরে তোমারই শরীরে।
বদলাচ্ছে পরিভাষা ধীরে।
মর্গের গেটপাস হারিয়ে ফেললো সহস্র পরিযায়ী ডানা,
অথচ আসমানে যতটা নীলের চীৎকার,
কোন পদ্মেই ততটা আগুন ভাসছে না।
সামান্য জল মুছিয়ে দিচ্ছে বারুদের প্রলাপ, সময় ব্যাস্ত বৃদ্ধ করতে
শরাবন কুনকি,
আর উপচে পড়া হিমের কিনার ছুঁয়ে ছুঁয়ে, কয়েক’শ জন্মের ব্যবধান থেকে আফরিন বুঝে নিতে চাইছি,
যে প্রেম সন্ত্রাসহীন,
কেন তাকে আমি গার্হস্থ্য নামে ডাকি।
Irabotee.com,irabotee,sounak dutta,ইরাবতী.কম,copy righted by irabotee.com
ঈদ ২০২০
 
 
ভাবছিলাম…
কখনো আমার আঁধার তোমায় এক খণ্ড মেঘও দিল না,
ব্যঙ্গমীর কথাদেহ মাণ্দাসে ভাসাতে গিয়ে কত হিমদেশ ভিজে গেল,
কোন চরে তোমার শর ডুবান ছিলো
পায়ে বিঁধল না।
বৃদ্ধ ও বিদ্ধ নক্ষত্র শরীর আমায় কোন জ্যোৎস্না দেবে?
অথচ কলঙ্ক নিয়ে দীর্ঘ সুর্মার আঁকি বুকি।
অমরত্বের রুখসত বা পিশাচ গার্হস্থ্য,
সবই তো সিপিয়া অ্যালবামে গাঁথা,
এখন শ্রান্ত অশ্বের শ্বাসে যদি কিছু লেপ্টে থাকে,
সে নিছক আহাজারি।
হটাত দেখি,
বিরান ঈদগায় বানজারা চাঁদ কাঁদতে এসেছে কাল,
আর বহু জন্ম পর আরশির আঁচে পুড়ছে এক মৃত পাখি,
নখর আর শিস দিয়ে বোনা এপিটাফে লেখা,
 
বহুকাল আগে হেরে গেছি আমি,
তখনও যুদ্ধ শুরু হয়নি…
 
 
 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: সর্বসত্ব সংরক্ষিত