৭ মার্চের ভাষন রেকর্ড ও ভিডিও করেছিলেন তিনি

আবুল খায়ের ছিলেন একজন বাংলাদেশী চলচ্চিত্র ও নাট্য অভিনেতা। তৎকালীন ডিএফপির কর্মকর্তা হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন। এই মানুষটিই ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর দেয়া ৭ মার্চের ভাষন নিজে ভিডিও করেছিলেন এবং ভাষন রেকর্ড করেছিলেন। আর সেজন্যই আজ আমরা টিভিতে সেই ভাষন দেখতে পাই আর শুনতেও পাই।
তিনি বিটিভির অসংখ্য জনপ্রিয় নাটকে যেমন অভিনয় করেছেন তেমনি অভিনয় করেছেন অসংখ্য সৃজনশীল চলচ্চিত্রে। তাকে বলা হত জাত অভিনেতা।আবুল খায়ের ১৯৭৩ সালে ঋত্বিক ঘটক পরিচালিত তিতাস একটি নদীর নাম চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। তিনি হুমায়ূন আহমেদ স্যার এর পরিচালনায় অসংখ্য নাটকে অভিনয় করে কালজয়ী হয়ে আছেন। হুমায়ূন আহমেদ এর সাথে তিনি প্রথম কাজ করেন এইসব দিনরাত্রি নাটকে। এরপর তিনি অভিনয় করেছেন বহুব্রীহি নামক ধারাবাহিক নাটকে।এছাড়া আজ রবিবার নাটকে দাদার চরিত্রে অভিনয় করেও তিনি সবার মনের মনিকোঠায় জায়গা করে নিয়েছেন। এছাড়া তিনি শেকড় নামক একটি নাটকে আবুল হায়াৎ এর বাবার চরিত্রে অভিনয় করেন যেখানে তার কান্না চোঁখে আবেগতাড়িত সংলাপ তাকে দর্শকদের কাছে আজো অমলিন রেখেছে।
তিনি বিটিভির কিছু সচেতনতা মূলক নাটিকায় অংশগ্রহন করেছিলেন। যার সবগুলোই ফিরত মানুষের মুখে মুখে।নাটিকায় তিনি তার অর্জুন গাছ খুঁজে বেড়াচ্ছেন আর বলছেন ” তাইলে আমি ওষুদ বানামু কি দিয়া মানুষ বাঁচবো ক্যামনে গাছ অইল অক্সিজেন ফ্যাক্টরি আল্লাহর দেয়া দান আমগো জীবন ” ।
তিনি যেসব চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছিলেন সেগুলোর মধ্যে প্রথমেই বলতে হয় মোরসেদুল ইসলাম নির্মিত দীপু নাম্বার টু চলচ্চিত্র এর সেই স্কুল শিক্ষক রুপী আবুল খায়ের এর কথা। তারপর বলতে হয় শেখ নিয়ামত আলী নির্মিত দহন চলচ্চিত্রের মামা চরিত্রটির কথা। এই চলচ্চিত্রে অভিনয়ের দরুন তিনি ১৯৮৫ সালে সেরা পার্শ্ব চরিত্র এই ক্যাটাগরিতে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন।
এই একই পরিচালকের অন্য একটি চলচ্চিত্র অন্য জীবন এ অভিনয় করেন এবং ১৯৯৪ সালে সেরা পার্শ্ব চরিত্র ক্যাটাগরিতে তিনি আবারো জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। তানভীর মোকাম্মেল পরিচালিত চিত্রা নদীর পাড়ে চলচ্চিত্রে বয়োজ্যেষ্ঠ এর চরিত্রে উনার অভিনয় ছিল সাবলিল।
ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ছিলেন অবিবাহিত। উনি একজনকে পছন্দ করতেন কিন্তু তাকে বিয়ে করতে পারেননি বিধায় তিনি অবিবাহিত হয়েই জীবন কাটিয়ে দেন।
-তথ্য সংগৃহীত

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত