আফ্রোদিতি : সৌন্দর্য ও ভালবাসার দেবী

Reading Time: 3 minutes
আফ্রোদিতি হলো ভালোবাসা, সৌন্দর্য, চিরযৌবনের দেবী৷ হেসিয়ডের ‘THEOGONY’ অনুসারে তাঁর জন্ম সাইপ্রাস দ্বীপের পেফোসের জলের ফেনা থেকে৷ কল্পনা করা হয় তাঁর জন্ম জলের ফেনা থেকে হয়েছে যখন দানব ক্রোনাস তার পিতা ইউরেনাসকে হত্যা করে এবং জননতন্ত্র কেটে সমুদ্রে নিক্ষেপ করে৷ আবার, হোমারের ‘ইলিয়াড’ অনুসারে আফ্রোদিতি জিউস এবং ডিয়নের কন্যা৷ এমন অনেক গ্রীক দেবদেবী আছে যাদের উৎপত্তির বহু গল্প পাওয়া যায়৷ অনেক দেবতারা বিশ্বাস করতো আফ্রোদিতির সৌন্দর্য এতই মোহনীয় ছিলো যে দেবতাগন নিজেদের মধ্যে  বিবাদে জড়িয়ে পড়তো তাঁকে নিয়ে৷ তাঁর সৌন্দর্যের আভা দেবতাদের মধ্যে যুদ্ধের স্ফুলিঙ্গ তৈরী করতো৷ ঠিক এই কারনেই জিউস আফ্রোদিতিকে বিয়ে দিয়েছিল হেপাইসটাসের সাথে, কারন হেপাইসটাসের কোন প্রতিদ্বন্দী ছিলো না তার অসুন্দর মুখাবয়ব ও বিকলাঙ্গতার জন্য৷
হেপাইসটাসের সাথে আফ্রোদিতি Source: wolfanita – DeviantArt
কিন্তু মজার ব্যাপার হলো, হেপাইসটাসের সাথে বিয়ে হওয়া সত্ত্বেও তাঁর অনেক প্রেমিক ছিলো৷ সে তালিকায় মানুষ ও দেবতা উভয়ই ছিলো, যেমন যুদ্ধের দেবতা এরেস৷ সে আরো ভূমিকা রেখেছিলো ঈরোস এবং সাইকি এর গল্পে, যেখানে সাইকি এর প্রশংসাকারিরা দেবী আফ্রোদিতির আরাধনা করার পরিবর্তে তাঁকে ভর্ৎসনা করতো৷ এতে প্রতিহিংসায় সে ঈরোসকে দিয়ে তার প্রতিশোধ নেয়ার ছক কষেছিলো৷ কিন্তু ভালবাসার দেবতা ঈরোস উল্টো সাইকির প্রেমে পড়ে গেল৷ অতঃপর, আফ্রোদিতি ছিলেন একই সাথে এডোনিসের প্রেমিকা এবং সৎ মা৷ এই ঘটনা একটা বিবাদের সৃষ্টি করলো পারসিফোনির সাথে, যাতে জিউস হুকুম দিলো এডোনিসকে এক বছরের অর্ধেক সময় অতিবাহিত করতে হবে আফ্রোদিতির সাথে বাকি অর্ধেক অতিবাহিত করতে হবে পারসিফোনির সাথে৷

আফ্রোদিতি সম্পর্কে কিছু তথ্য:

১. আফ্রোদিতি ছিলেন ভালবাসা, সৌন্দর্য ও জননের দেবী৷ ২.আফ্রোদিতির জন্মের দুইটি গল্প আছে৷ প্রথমটি খুবই সহজ, সে জিউস এবং ডিয়ন এর কন্যা৷ দ্বিতীয় গল্প অনুসারে তাঁর জন্ম হয়েছে সমুদ্রের জলের ফেনা থেকে৷ ৩. হেপাইসটাসের সাথে আফ্রোদিতির বিয়ে হলেও তাঁর মনের ইচ্ছের সাথে কখনো হেপাইসটাসের সংকল্প মিলেনি ৷ ৪. সে এবং এরেস জন্ম দিয়েছিলো হারমোনিয়াকে, যে অবশেষে বিবাহ করেছিলো হেরেডোটাসকে ৷ ৫. সে ছিলো হারমাফ্রোদিতাসের মা, এই সন্তানের পিতা ছিলো হেরমেস৷ ৬. আফ্রোদিতি এবং তাঁর পুত্র ঈরেস সম্মিলিত হয়ে জিউসের ইউরোপা নামে একজন মানুষের প্রেমে পড়ার কারন সৃষ্টি করেছিলো৷ ৭. আফ্রোদিতি ভালবেসেছিলো এডোনিসকে৷ সে তাকে দেখেছিলো যখন তার জন্ম হয় এবং মনে মনে বাসনা রেখেছিলো যে এডোনিস তাঁর হবে৷ সে পারসিফোনিকে এডোনিসের দেখভালের দ্বায়িত্ব দিয়েছিলো কিন্তু পারসিফোনি নিজেও এডোনিসের প্রেমে পড়ে গিয়েছিলো, এবং তাকে ফেরত দিতে চাইছিলো না৷ এমতাবস্থায়, জিউস মধ্যস্থতায় এগিয়ে এলেন এবং দরবার করে রায় দিলেন এডোনিস দুই জনের সাথেই থাকবে, বছরের অর্ধেক সময় অতিবাহিত করবে একজনের সাথে, বাকি অর্ধেক সময় আরেকজনের সাথে৷ ৮. আফ্রোদিতি রাজহাঁস অঙ্কিত এক ধরনের বাহন ব্যবহার করতেন যেটা হাওয়ায় ভেসে চলে৷
রাজহাঁস অঙ্কিত বাহন Source: Theoi Greek Mythology
৯. আফ্রোদিতি, হেরা, এথেনা এই তিন জন শীর্ষ প্রতিযোগী ছিলো একটি স্বর্ণের আপেলের জন্যে যেটিতে খোদাই করে লেখা ছিলো “সবচেয়ে সুন্দরীর জন্য”৷ জিউসকে বললো এই প্রতিযোগীতার বিচারকার্য পরিচালনা করতে কিন্তু তিনি অপারগতা প্রকাশ করলেন৷ তারপর, ট্রয় নগরের রাজার পুত্র প্যারিস এই প্রতিযোগিতায় বিচারকের দায়িত্ব নিলেন৷ প্রত্যেক দেবীই তাকে প্রতিদানে অনেক কিছু দেবার অঙ্গিকার করলেন, কিন্তু প্যারিস আফ্রোদিতির পক্ষে রায় দিলেন৷ প্যারিসের এই বিচারকার্যের গল্পকে বিবেচনা করা হয় ট্রোজান যুদ্ধের পিছনে প্রধান কারন হিসেবে৷ ১০. ট্রোজান যুদ্ধের সময় আফ্রোদিতি প্যারিসের পক্ষে লড়াই করে ৷ ১১. আফ্রোদিতি প্যারিসকে রক্ষা করেছিলো মেনেলাউসের কাছ থেকে, সে মেঘ দিয়ে তাকে ঢেকে ফেলেছিলো এবং ট্রয় নগরীতে ফিরিয়ে নিয়ে গিয়েছিলো৷
আফ্রোদিতি ও ট্রোজান যুদ্ধ Source: Wix.com
১২. আফ্রোদিতি কোমরে বাঁধা এক জাদুর পেটি অর্জন করেছিলো, একদা হেরা সেটা ধার নিয়েছিলো জিউসকে প্রলুব্ধ করতে যাতে সে ট্রোজান যুদ্ধে বিভ্রান্ত হয়ে পড়ে৷ ১৩. আফ্রোদিতি হারমোনিয়াকে একটি গলার হার দিয়েছিলো যেটি পরবর্তী প্রজন্মের বিপর্যয় বহন করে৷ ১৪. পতিতারা ভালবাসার দেবীকে তাদের পৃষ্ঠপোষক হিসেবে বিবেচনা করতো৷ কেননা দেবীর একাধিক প্রেমিক ছিলো৷ ১৫. আদি গ্রীক শিল্প দেবীকে নগ্নরূপে অঙ্কিত করেছিলো৷ ১৬. আফ্রোদিতি ছিলো বিখ্যাত ভাস্কর্য “ভেনাস ডি মেলো” এর মডেল৷ তথ্যসূত্রঃ http://www.majorolympians.com/aphrodite.html

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

You may use these HTML tags and attributes:

<a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>