ব্রেকআপের পরে (পর্ব-৮)

আঘাত পাওয়া অভ্যেস হয়ে গেছে আমার। রাতের চাদরে লুন্ঠিত অভিমান একা কাঁদে। আমি দাঁতে দাঁত চেপে সকাল ডাকি। ভুলে যাবার সকাল। ভুলিয়ে দেবার সকাল। অপমানগুলো কে শব্দে সাজিয়েছি বলে আজও বেঁচে আছি। মেঘলা আকাশ দেখলে রোমান্টিক হওয়ার চেষ্টারা বিদ্রূপ করে শরীর মেলে দেয় বৃষ্টি ফোঁটায়। অপমানের সকাল বা রাত হয়না।ক্ষত হয়। ক্ষতর নিরাময় থাকে যে সমস্ত স্পর্শে, তুমি তাকে ঘৃণা করে প্রত্যাখ্যান করেছ। মাঝখানে এত ঘৃণা জমিয়েছ যে টপকে আসতে গেলেও হাতে পায়ে লেগেই যাবে।

আমার কোন পরিত্রাণ নেই জানি। জানি এক লক্ষ অপমানের পর ও সেতু বুনে যাব আমি ভিখিরির শেষ সম্বলের মতো। তোমার জন্য খুব কষ্ট হয়। প্রেমিকের চোখে এত ঘৃণা তাকে কখনো নিশ্চিত ঘুম দেয়না। ভালোবাসায় অবিশ্বাস তাকে দুদন্ড তিষ্ঠোতে দেয় না।

অথচ সে নিজেই নিজের পরিত্রাণ হতে পারত।
ভালোবাসারা এখনো রঙিন মেখলা সাজে দাঁড়িয়ে । চোখ খোল। চোখ.. দৃষ্টিবান হও… , দৃষ্টি নান্দনিকতা আনে।

ফুরিয়ে আসে দিনের শেষে সময়
শিরার মধ্যে রক্তরাগের দাগ
বীণার তারে হঠাৎ হাত পড়ে
আনখশির ঝঙ্কারেতে থাক।

কথা ছিল একলা ফুরোবার
ফুরিয়ে যেতাম, হঠাৎ হল দেখা।
চোখের ভাষায় একই দুঃখলিপি
ছড়িয়েছিল অলীক অস্থিরতা।

তোমার কাছে গোপন কিছু নেই
অভিজ্ঞতা একই সুরে বাঁধা
হাত বাড়ালেই দুঃখ জড়ায় তোমায়
বুকের তারে দুফোঁটা জল রাখা

ভালবাসার কারণ টারণ খুঁজুক
ওই যে যাদের রোদ্দুরেতে ঘর।
ঘুমের মধ্যে সুখ রেখেছি খুব
বাঁচা এখন মেঘের রূপান্তর।

পাগল করা মনখারাপি সকাল
দুই বিছানায় অপেক্ষা-রোদ বাড়ে
ওইটুকুতে সুখ রেখেছি আমি
মেঘ বুনে দাও আমার আকাশ জুড়ে।

আঙুল এখন মেঘের কারখানা
জিয়নকাঠি সকাল আমায় জাগাও
আরেকবার খেলেই দেখি জুয়া
আরেকবার প্রেমেই এসো,হারাও।

 

 

 

 

 

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত