ব্রেকআপের পরে (পর্ব-৯)

ব্রেকআপের পরে চুম্বন শব্দটি কার্যত নিষিদ্ধ হয়ে যায়। সমস্ত নিবিড় সম্বোধন বাতিল হয়ে যায়।অনুরাগের যত ডাক, সব মিথ্যে, ভেজাল বলে দাবি করা হয়। অথচ দেখা হলে ঠোঁটের কাঁপনটুকুও শুষে নেয় একে অপরের চোখ। খালি বিছানায় আত্মরতিতে এক ই মুখচ্ছবি ভাসাতে ব্রেক আপ বাধা দেয় না। তার সমস্যা ধরা দেওয়াতে।তার আকুল উঠোন জুড়ে সুখী সময়ের প্রতিচ্ছবি। তার মাঝরাতের ঘুমের মধ্যে শেষ আদরের স্খলন। ব্রেকআপের প্রকাশ্য ঘৃণার ওপারে অপ্রকাশিত শিৎকার লুকিয়ে থাকে।মেঘলা দিনে তার অসুবিধে বাড়ে। জল গড়াতে থাকে।উপচে পড়ে দমবন্ধ ভালোবাসা। ব্রেকআপ শরীরকে বেঁধেছে খুব, তাই মনের বিকেল জুড়ে থই থই আদরে সে অস্থির। সঙ্গম শব্দটাকে ঘৃণা করো যতো‌ তুমি, বৃষ্টির সাথে সাথে ততো আমার গন্ধ জড়ায় তোমায়। তোমার শরীর জুড়ে আকুল, অস্থির, সময়ের আঁচড়-দাগ, ‘আমি’ হয়ে ছড়িয়ে আছি। কোন বৃষ্টি তা ধুয়ে তুলতে পারেনা।

ব্রেকআপের নিজস্ব কিছু শিৎকার আছে। একলা অন্ধকারে তা গোঙানির মতো শোনায়।

বৃষ্টি পড়লে এখনো ঝরঝর
মনের ভেতর ময়ূররঙা নদী
দুলতে থাকে, ফুলতে থাকে ঢেউ
তোমায় ছুঁয়ে আজো নিরবধি
বেঁচে আছি, এটাই খুব অলীক
বৃষ্টি ফোঁটা; সেসব কথা জানি,
দূরত্বে তো খুব বেঁধেছো সময়
গাঁথছো কেন স্মৃতির মালাখানি?
তোমার ছুটি নেই মেঘেদের মাঝে
আমার ও আর কোথাও খবর নেই
আমার সকাল মেঘলা ডেকে যায়
তোমায় ভোলা তোমার মাঝেতেই।
আসলে কথা বৃষ্টি শুধু জানে
জলের ফোঁটায় লিখেছে তোর নাম
বারিষওয়ালা বাঁশি র সুরে কেন
ডাকছে আমায় নীরব মন-আনচান
তোমার বৃষ্টি আমার গন্ধে ভরা
শরীরী ডাক, ভেজার প্রতিশ্রুতি
আমার বৃষ্টি মনকেমনের আলাপ
চকমকি-আগ ছড়ায় কেমন দ্যুতি।
আগুন এখন দুই হৃদয়েই জ্বলে
বৃষ্টিকে কে অগ্নিমন্ত্র দিলো?
পুড়ছে আমার শরীর এখন ভেজা
তোমার বৃষ্টি আমার শরীর হলো?

.

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত