| 21 মে 2024
Categories
বিনোদন

গুলাবো সিতাবো-র স্ক্রিপ্ট চুরি

আনুমানিক পঠনকাল: 3 মিনিট

অমিতাভ বচ্চন এবং আয়ুষ্মান খুরানা অভিনীত ‘গুলাবো সিতাবো’ ছবিটি-কে ঘিরে বিস্তর বিতর্ক দানা বেঁধেছে। ছবির পরিচালক সুজিত সরকার এবং চিত্রনাট্যকার জুহি চতুর্বেদী। এদিকে প্রয়াত লেখক রাজীব আগরওয়ালের কন্যা আকিরা আগরওয়াল দাবি করেছেন যে, ‘গুলাবো সিতাবো’ ছবির চিত্রনাট্য তাঁরই একটি স্ক্রিপ্ট থেকে চুরি করে লেখা। আর সেই অভিযোগ ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়েছেন ছবির চিত্রনাট্যকার জুহি চতুর্বেদী। এই জুহিই সুজিতের বিখ্যাত ছবি ‘পিকু’, ‘অক্টোবর’ এবং আরও বেশ কিছু ছবির চিত্রনাট্য লিখেছিলেন।

কিন্তু কেন এমনতর দাবি করছেন আকিরা? সেই ঘটনা জানতে গেলে টাইম মেশিনে ফিরে যেতে হবে, কয়েক বছর আগে। চিত্রনাট্য লেখার একটি প্রতিযোগিতা হয়েছিল কিছু বছর আগে। সেই প্রতিযোগিতার আয়োজক ‘সিনেস্তান ইন্ডিয়া’ এবং প্রোমোট করা হয় দ্য স্ক্রিন রাইটার্স অ্যাসোসিয়েশনের (SWA) তরফে। সিনেস্তান ইন্ডিয়া’র সেই ‘স্টোরিটেলার স্ক্রিপ্ট কন্টেস্ট’ শীর্ষক প্রতিযোগিতায় বিচারকের ভূমিকায় আবার ছিলেন এই জুহি চতুর্বেদীই। জুহি ছাড়াও সেখানে বিচারকের আসলে ছিলেন বিখ্যাত চিত্রনাট্যকার অঞ্জুম রাজাবলী, আমির খান এবং রাজকুমার হিরানি।

২৪ অক্টোবর, ২০১৮ সালে যখন সমস্ত প্রতিযোগীদের লেখা স্ক্রিপ্ট থেকে মোট আটটি বাছাই করে নেওয়া হল, সেখানে নাম ছিল না আকিরার। এ দিকে ‘গুলাবো সিতাবো’-র অমিতাভ বচ্চনের চরিত্রটির কথা ভেবেই মিস্টার বচ্চনকে ফোন করেছিলেন জুহি। সেটা ২০১৭ সালে। চরিত্র তো বটেই। এমনকী স্ক্রিপ্টও বেশ পছন্দ হয়েছিল অমিতাভের। আর তারপরই জুহিকে তিনি এই চিত্রনাট্য নিয়ে কাজ করতে বলেছিলেন। পরক্ষণেই আইডিয়া ডেভেলপ করে ২০১৮ সালের মে মাসেই স্ক্রিপ্টের রেজিস্ট্রেশন করিয়ে ফেলেছিলেন জুহি। আর ওই প্রতিযোগিতা হয়েছিল সেই বছরের অক্টোবরে।

ei samay

অভিনেতাদের সঙ্গে পরিচালক সুজিত সরকার!


স্ক্রিপ্ট নিয়ে চলা দোলাচলের ফলে ২০২০ সালের ২৯ মে জুহি চতুর্বেদীর পাশে দাঁড়ায় স্ক্রিন রাইটার্স অ্যাসোসিয়েশন। চিত্রনাট্যকারের পাশে দাঁড়ান সুজিত সরকার ও রনি লাহিড়ীর প্রযোজনা সংস্থা ‘রাইজিং সান ফিল্মস’ও। এমনকী জুহি পাশে পেয়ে যান বলিউডের বিখ্যাত স্ক্রিন রাইটার অঞ্জুম রাজাবলীকেও। জুহি বললেন, “গুলাবো সিতাবো আমার নিজের লেখা এবং তার জন্য আমি যথেষ্ট গর্বিত। আমার বিবেকের কাছেও আমি পরিষ্কার। ২০১৭ সালেই এই ছবির আইডিয়া মুখ্য অভিনেতা এবং পরিচালকের সঙ্গে শেয়ার করেছিলাম। পরবর্তীকালে ২০১৮ সালের মে মাসে ছবিটির কনসেপ্ট নোটও আমি রেজিস্টার করি। একই সঙ্গে সিনেস্তান প্রতিযোগিতার জুরি সদস্য হিসাবে আমার আচরণের জল্পনাও অবশ্যই স্পষ্ট করতে হবে। কারণ সিনেস্তানের সমস্ত জুড়ি মেম্বার এবং অন্যান্যরা সবাই মিলেই স্ক্রিপ্ট চূড়ান্ত করেন। এমনকী স্ক্রিন রাইটার্স অ্যাসোসিয়েশনও এই স্ক্রিপ্ট নিয়ে আমাকে সমর্থন করেছে।”


ei samay

অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে জুহি, সুজিত এবং রনি লাহিড়ী।


জুহি আরও বললেন, ” এই মুহূর্তে সংবাদমাধ্যম এবং জনসাধারণের কাছে আমার অনুরোধ, দয়া করে গুজবে কান দেবেন না। প্রচারের জন্য মিথ্যাকে আশ্রয় দেওয়ার কোনও মানে হয় না। মানুষকে হেনস্থা করা, গোপন নোটিশ ফাঁস করে দেওয়া, এসবের মধ্যে দিয়েই অভিযোগকারিনী প্রমাণ করে দিয়েছেন যে, তাঁর অভিযোগ আদতে কতটা ভিত্তিহীন।” অভিযোগকারিনী অর্থাৎ আকিরা আগরওয়াল সেই প্রতিযোগিতায় যে স্ক্রিপটি জমা করেছিলেন, তার নাম ’16, Mohandas Lane’। এই স্ক্রিপ্টটি লিখেছিলেন রাজীব আগরওয়াল। সেই প্রসঙ্গেই প্রতিযোগিতার আর এক বিচারক অঞ্জুম রাজাবলী বললেন, “জুহির উপরে ভিত্তিহীন অভিযোগ করা হচ্ছে। কারণ, যে স্ক্রিপ্ট নিয়ে অভিযোগ, তা জুহি একবার খুলেও দেখেনি। অন্য বিচারকরা সেই চিত্রনাট্য পড়েছিলেন। “

‘গুলাবো সিতাবো’ ছবির অন্যতম প্রযোজক রাইজিং সান ফিল্মস-এর রনি লাহিড়ী বললেন, “আসলে অভিযোগকারিনী আরও ভেঙে পড়েছেন কারণ, স্ক্রিন রাইটার্স অ্যাসোসিয়েশনের রায় তাঁদের পক্ষে যায়নি। এটা জুহি এবং আমাদের নামে একটা রটনা রটিয়ে ছবিটার ক্ষতি করার চক্রান্ত। আর যখন আমরা ছবিটাকে ওটিটি প্ল্যাটফর্মে রিলিজ করার চিন্তাভাবনা শুরু করি, তখন তাঁরা আরও বেশি করে সুযোগ পেয়ে যায়। এই ধরনের নিম্নরুচির পরিচায় দিয়ে লাইমলাইটে আসার কী প্রয়োজন।”

 

 

 

 

 

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: সর্বসত্ব সংরক্ষিত