হ্যাটট্রিক ক্লাবে বুমরা

নিত্য নিজেকে ছাড়িয়ে যাওয়ার পালায় জশপ্রীত বুমরা গড়লেন নতুন কীর্তি। আগের টেস্টে রেকর্ড গড়া বোলিংয়ের পর ভারতীয় ফাস্ট বোলার এবার করেছেন হ্যাটট্রিক। তার ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে আবারও বিধ্বস্ত ক্যারিবিয়ান ব্যাটিং।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে কিংস্টন টেস্টের দ্বিতীয় দিনে এই হ্যাটট্রিক-আনন্দে ভেসেছেন বুমরাহ। টানা তিন বলে ফিরিয়েছেন ড্যারেন ব্রাভো, শামারাহ ব্রুকস ও রোস্টন চেইসকে।

ভারতের হয়ে এর আগে টেস্ট হ্যাটট্রিকের স্বাদ পেয়েছিলেন কেবল দুইজন। ২০০১ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে কলকাতায় হ্যাটট্রিক করেছিলেন অফ স্পিনার হরভজন সিং। ২০০৬ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে করাচীতে হ্যাটট্রিক করেছিলেন বাঁহাতি পেসার ইরফান পাঠান।

আগের টেস্টেই অ্যান্টিগায় ৭ রানে ৫ উইকেট নিয়ে ভারতের হয়ে সবচেয়ে কম রানে ৫ উইকেটের রেকর্ড গড়েছিলেন বুমরাহ। এই টেস্টেও দেখা গেল তার একইরকম রুদ্ররূপ। ক্যারিবিয়ান ওপেনার জন ক্যাম্পবেলকে ফিরিয়ে শুরু করেছিলেন শিকার। নিজের চতুর্থ ওভারে করেন হ্যাটট্রিক।

মিডল স্টাম্পে পিচ করে বেরিয়ে যাওয়া বলে (ডানহাতির জন্য ইনসুইঙ্গার) বাঁহাতি ব্রাভো ক্যাচ দেন স্লিপে। পরের বলে ডানহাতি ব্রুকস এলবিডব্লিউ হন দুর্দান্ত ইনসুইঙ্গারে। টিকতে পারেননি তিনি রিভিউ নিয়েও। হ্যাটট্রিকও পূরণ হয় রিভিউয়ে। এবার আম্পায়ার আউট না দিলেও ভারত জেতে রিভিউ নিয়ে। বুমরা ভাসেন উল্লাসে।

সেই ওভার শেষে তার নামের পাশে চার ওভারে চার রানে চার উইকেট!

পরে ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েটকে ফিরিয়ে টানা দ্বিতীয় টেস্টে পূরণ করেন ৫ উইকেট। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ৫ উইকেটের সবকটিই তখন তার।

এরপর পায়ে ক্র্যাম্প নিয়ে কিছু সময়ের জন্য বাইরে চলে গেলে কিছুটা স্বস্তি মিলেছিল ক্যারিবিয়ানদের। কিন্তু শেষ বিকেলে আবার মাঠে ফিরে নেন আরও একটি উইকেট। ৭ উইকেটে ৮৭ রানে দিন শেষ করেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। হ্যাটট্রিক করা দিনটি শেষে বুমরার বোলিং ফিগার ৯.১-৩-১৬-৬!

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত