| 14 জুলাই 2024
Categories
এই দিনে নাটক বিনোদন

নীরব হলো ‘বিদ্রোহী কণ্ঠ’

আনুমানিক পঠনকাল: < 1 মিনিট

বাংলাদেশের থিয়েটার অঙ্গনের পরিচিত মুখ ইশরাত নিশাতের প্রয়াণে ইরাবতী পরিবার শোকাহত। ইরাবতী পরিবারের বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলি।


পকেটে সিটারেট থাকতো তার। শার্টের বুক পকেটে এস্ট্রে। আমাদের সহ আবৃত্তিকর্মীরা তার কাছে এসে বলতো, সিগারেট আছে নিশাত আপা? আর তিনি অকাতরে বিলাতেন। জিনস্ আর শার্ট ছাড়া একদিন কেবল তাকে দেখেছিলাম আবৃত্তিকার শিমুল মোস্তফার বিয়েতে। দীর্ঘ লম্বা চুলের অপরূপ সে কৃষ্ণার ছবি আজও চোখে দীপ্যমান। ছাত্রজীবনে মঞ্চে দর্পণে শরৎ শশীর একটি প্রযোজনা দেখারও বহু পরে সেই ৯৬/৯৭ সালে আমাদের শক্তি চট্টোপাধ্যায়ের ওপর আড়াই ঘন্টার প্রযোজনা “পদ্য বাউল” এর নির্দেশনা দিয়েছিলেন নিশাত আপা। সেই থেকে তার সাথে সক্ষতা। মনে আর কাজে ছিলেন পুরোপুরি নাটক পাগল। বোধে ছিলেন নিবিষ্ট দেশপ্রেমিক। সত্ত্বায় নারীর ওপরে পুরোপুরি একজন মানুষ। তার ভেতরের এক কোমল সরল মানুষের তুমুল বহিরাবরণে আমি মুগ্ধ হতাম। বিস্মিত চোখে চেয়ে থাকতাম। আমি যখন চিন্তাসূত্র অনলাইন পোর্টালে “কবিতার ডিসেকশন” ধারাবাহিকটি লিখছি হঠাৎ একদিন ইনবক্সে ঢুকে বললেন,

-ভালো কাজ করছিস। কবিতা পড়া ছেড়েছিস অথচ কবিতার সাথেই রয়ে গেলি।ছাড়তে পারলি কই??
আমি ঘরভাঙা মানুষ। কত বন্ধু সুহৃদ কত বুদ্ধি পরামর্শ দেয়। সবচেয়ে বড় আর দরকারী কথাটা বলেছিলেন নিশাত আপা। বলেছিলেন
– মনে রাখিস, একার শক্তি অনেক। এবার কাজ করতে লেগে যা।

আহা নিশাত আপা। আমার একাকে এতটা শক্তি দিয়ে তুমি একা, আরও একা চলে গেলে। তোমার শূন্যতা আমার এই ছোট্ট কর্মবহুল জীবনে কোনোদিন পূর্ণ হবার নয়। তোমাকে অভিবাদন জানাই। তোমাকে ভালোবাসা জানাই। তোমার একার যাত্রাও আমাদেরকে সমৃদ্ধ করার মতো ফুলেল হোক প্রিয়।
ঘুম তোমার শান্তির হোক….

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: সর্বসত্ব সংরক্ষিত