| 21 ফেব্রুয়ারি 2024
Categories
ইতিহাস

দোলযাত্রা ও হোলির ইতিহাস

আনুমানিক পঠনকাল: 4 মিনিট

‘রাঙিয়ে দিয়ে যাও যাও যাও গো এবার যাবার আগে
তোমার আপন রাগে, তোমার গোপন রাগে,
তোমার তরুণ হাসির অরুণ রাগে,
অশ্রুজলের করুণ রাগে …
মেঘের বুকে যেমন মেঘের মন্দ্র জাগে,
তেমনি আমায় দোল দিয়ে যাও”

রঙ খেলার উৎসব দোলযাত্রা। রঙ, আবির, গুলালে জীবনকে রঙিন করে তোলার নতুন এক আহ্বান দেয় দোল। বৈষ্ণব বিশ্বাসীদের মতানুসারে, ফাল্গুনী পূর্ণিমা তিথিতে বৃন্দাবনের নন্দকাননে ভগবান শ্রীকৃষ্ণ রাধিকা দেবী এবং তার সখী ও অন্যান্য গোপীর সাথে রঙ খেলায় মেতেছিলেন। এই দিনকে স্মরণ করতেই দোলযাত্রার সূচনা হয়েছিলো। তাই প্রত্যেক বছর ফাগুন মাসের পূর্ণিমা তিথিতে, প্রচলিত পঞ্জিকা অনুসারে, ১৪তম রাতের পরবর্তী দিনে উদযাপিত হয় দোল। পণ্ডিতদের মতে, রাধাকৃষ্ণের দোলনায় দোল বা দোলায় গমন করা থেকেই ‘দোল’ কথাটির উৎপত্তি। এই দিন রাধা-কৃষ্ণের বিগ্রহ গুলালে স্নান করিয়ে দোলায় চড়িয়ে কীর্তনগান সহকারে সকালেই বেরিয়ে পড়েন ভক্তরা। এরপর শুরু হয় রঙ ছুঁড়াছুঁড়ির পালা। একে অন্যকে কতখানি রাঙিয়ে তুললো, সেই প্রতিযোগিতায় মাতা হয়।

হোলি মানে রঙিন উৎসবে পাড়ায় পাড়ায় উঠে আসে একটুকরো শান্তিনিকেতন। অন্যদিকে নদিয়া জেলার নবদ্বীপে পালিত হয় শ্রী চৈতন্যর জন্মতিথি। রঙ মাখা ছবির কারুকার্যে ভরে যায় সোশ্যাল মিডিয়া, কিন্তু হোলি বা দোল উৎসবের পূর্ব ইতিহাস কি সেই প্রশ্নের উত্তর অনেকের কাছেই থাকে না।

খুব চেষ্টা করলে কেউ হয়েতো বৃন্দাবনে রাধা কৃষ্ণের হোলি খেলার বৃত্তান্ত উল্লেখ করবেন। রাধা-কৃষ্ণ কি আবির খেলার স্রষ্টা? না, হোলি উৎসবের সঙ্গে জরিত পুরাণের বিশেষ কিছু কাহিনী। দৈত্যরাজ হিরণ্যকশিপুর কাহিনী কম বেশি সকলেই জানি। আর সেই অসুর বংশে জন্ম নিয়েই প্রহ্লাদ ছিলেন পরম ধার্মিক। তাঁকে অসংখ্যবার হত্যার চেষ্টা করেও সফল হননি হিরণ্যকশিপু।

পরিস্থিতি বুঝে হিরণ্যকিশপুর বোন হোলিকা প্রহ্লাদকে কোলে নিয়ে আগুনে প্রবেশের সিদ্ধান্ত নেন। হোলিকা এই অগ্নি থেকে ক্ষতি না হওয়ার বর প্রাপ্ত ছিলেন। কিন্তু অন্যায় কাজে শক্তি প্রয়োগ করে হোলিকা। প্রহ্লাদকে নিয়ে সে আগুনে প্রবেশ করলে বিষ্ণুর কৃপায় প্রহ্লাদ অগ্নিকুণ্ড থেকেও অক্ষত অবস্থায় বেরিয়ে আসে। ক্ষমতার অপব্যবহার করায় হোলিকার বর নষ্ট হয়।

বিষ্ণুর অভিশাপে হোলিকা অগ্নিকুন্ডে পুড়ে নিঃশেষ হয়ে যায়। এই হোলিকার থেকেই হোলি শব্দটির উৎপত্তি। ভগবান বিষ্ণু দ্বাপর যুগে শ্রীকৃষ্ণ অবতার নিয়ে বসন্ত পূর্ণিমার দিন কেশি নামক অত্যাচারী অসুরকে বধ করে সমগ্র বৃন্দাবনকে রক্ষা করেন। সেই আনন্দে হোলি উৎসব পালিত হয়েছিল। মধ্যযুগের চিত্রশিল্প ও সঙ্গীতে অন্যতম প্রধান বিষয় রাধা-কৃষ্ণের হোলি উৎসব। রাধা-কৃষ্ণকে কেন্দ্র করে হোলির যে অতি বৈষ্ণবীয় আচার তার পাল্টা প্রশ্ন রয়েছে।

শ্রীকৃষ্ণের জীবন ইতিহাসের সঙ্গে হোলি উৎসব সঙ্গতিপূর্ণ নয় বলে মনে করেন অনেকেই। ইতিহাস বলে, শ্রীকৃষ্ণ মাত্র ১০ বছর বয়সে বৃন্দাবন ত্যাগ করে মথুরা চলে যান, এরপর কখনও ফিরে যাননি সেখানে। অন্যদিকে বেশকিছু ঐতিহাসিক রাধার অস্তিত্বকেই অস্বীকার করেছেন। শুধুমাত্র গর্গ সংহিতায় রাধার উল্লেখ পাওয়া যায় শ্রীকৃষ্ণের সাধন সঙ্গিনী হিসাবে। এছাড়া নারদ পুরান, ভবিষ্য পুরানে দোলপূর্ণিমার উল্লেখ আছে।

অঞ্চল ভেদে হোলি বা দোল উৎসব পালনের ভিন্ন ব্যাখ্যা আছে। দোল উৎসবের সঙ্গে সংপৃক্ত লোককথার ভিন্নতা থাকতে পারে কিন্তু রীতি নীতি একই থাকে ।বাংলায় যাকে ‘দোলযাত্রা’ বলে পশ্চিম ও মধ্যভারতে সেটাই ‘হোলি’। রঙের উৎসবের আগের দিন ‘হোলিকা দহন’ হয় অত্যন্ত ধুমধাম করে। শুকনো গাছের ডাল, কাঠ ইত্যাদি দাহ্যবস্তু অনেক আগে থেকে সংগ্রহ করে সু-উচ্চ একতা থাম বানিয়ে তাতে অগ্নি সংযোগ করে ‘হোলিকা দহন’ হয়।

ইতিহাস ঘাঁটলে দেখা যায়, ভারতবর্ষের পূর্বাঞ্চলের প্রাচীন আর্য জাতি সূচনা করেছে রঙ খেলার। আবার এমনটাও জানা যায় যে, খ্রিস্টের জন্মেরও কয়েকশো বছর আগে থেকেই হোলি উদযাপিত হয়ে আসছে এই ধরায়। প্রাচীনকালের পাথরে খোদাই করা ভাস্কর্যে নাকি এই উৎসবের উল্লেখ পাওয়া গিয়েছিল। দোলের কথা লেখা আছে পবিত্র গ্রন্থ বেদ এবং পুরাণেও। ৭০০ শতকের দিকে রাজা হর্ষবর্ধনের সময়ে সংস্কৃত ভাষায় লেখা একটি প্রেমের নাটিকাতে হোলি উৎসবের উল্লেখ পাওয়া যায়। পরে বিভিন্ন মন্দিরের গায়ে খোদাই করা চিত্রকর্মে হোলি খেলার নমুনা বিভিন্নভাবে ফুটে উঠেছে বলে দাবি করেন বিশ্বাসীরা। তাহলে বলতে হয়, হোলি বেশ প্রাচীন একটি উৎসব।  

ইংরেজদের কাছেও বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছিল দোল উৎসব। প্রথমদিকে এই উৎসবকে তারা রোমান উৎসব ‘ল্যুপেরক্যালিয়া’ হিসেবেই মনে করেছিল। অনেকে অবশ্য একে গ্রিকদের উৎসব ‘ব্যাকানালিয়া’র সঙ্গেও তুলনা করেছিল।

বাঙলায় যাকে নেড়াপোড়া বা চাঁচর বলা হয়। এরপর রঙের উৎসবে মেতে ওঠে সকলে । বাংলায় দোলকে ঋতুচক্রের শেষ উৎসব বলা হয়। পাতাঝরার সময়, বৈশাখের প্রতীক্ষা। এই সময় পড়ে থাকা গাছের শুকনো পাতা, তার ডালপালা একত্রিত করে জ্বালিয়ে দেওয়ার মধ্যে এক সামাজিক তাৎপর্য রয়েছে।

পুরনো জঞ্জাল, রুক্ষতা, শুষ্কতা সরিয়ে নতুনের আহ্বান হয় এই হোলি। বাংলায় দোলের আগের দিন ‘চাঁচর’ উদযাপনকে এভাবেই ব্যাখ্যা করা হয়। সর্বশেষে বলা যায় ,সামাজিক ছুঁতমার্গের উর্ধে উঠে বৈষ্ণব ভক্তি আন্দোলনের প্রচারক শ্রী চৈতন্য দেবের জন্ম তিথি দোলপূর্ণিমা। তাই একে জাতি, ধর্ম নির্বিশেষে মিলন উৎসব বলা চলে।

 

 

 

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: সর্বসত্ব সংরক্ষিত