রঙ

আমি এক রঙের  পোশাক পরি না।
এমন কী ক্লাশে এক রঙ
পড়াইও না।
রঙের জলে কথাকে স্নাত না করে
কোন বাক্যকে মরমে রাখি না।
রঙের জলেই কথা পোয়াতি বাক্য;
ঝুঁকে পড়া পুরুষ্ট শরীর।
সাদামাটা কথা কেবলই কেজো কথা।
কেবলই হাঁটের গুঞ্জন।
হাঁটুরেদের অচেনা অজানা পথের সঙ্গি।
পথে পথে চলতি পথিক বটে
                                   কিন্তু ঘরে তুলে আনি না।
রঙে রঙ না মিশালে আমার চলে না।
তবে এটি ঠিক সব রঙে যৌথতা হয় না।
হলেও সংসার টিকে না।
আবার কোনটা হিজড়ে রঙ।
হাতের তালে চটাস চটাস শব্দ তুললেও
কোন নতুন রঙ প্রসব করতে পারে না।
সেদিন পুরুষ রঙের সাথে যৈবতি রঙের গিঁট
দিতে না দিতেই
একটা দারুন এ্যাশ কালারের ভোর আমার শরীরে
শীতের চাঁদরের মতো চড়ে বসল।
আমি চমকে উঠলাম।
আমি আহ্লাদিত হলাম।
আমি চাদরের শরীরে মিহিদানা শিশির
আর শিউলি ফুলের গন্ধ ছড়াতে ছড়াতে
প্রাতভ্রমনে বেড়িয়ে পড়লাম আমার পোষা কুকুর নিয়ে।

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত