স্বল্প দৈর্ঘ্যের ছায়াছবি

 

                             

 

 জানালা গলে মেঝেতে পড়ে থাকা রোদ আমাকে পরম কৌতুকে বাজিয়ে নেয় । নদীর সোঁতায় পড়ে আছে প্রেম একলা । শিস দিয়ে জানিয়ে যায় গন্ধর্ব মেঘ । খাদের কিনারে এসে নীচু হয়ে মিশে যায় সবুজমহলে । ধোঁয়া ওঠে নিঃশ্বাসে । চায়ের পেয়ালা আমারই মত  ঘুম জড়ানো চোখে  টুং টাং  আড়মোড়া ভাঙে । জানালার ফ্রেমে আটকে থাকা দলেদলে মহিষের মত দুরের পাহাড়ের দিকে চেয়ে আছে নাম না জানা অর্কিড । আমি তাদের নাম দিয়েছি খিলখিল আর কানাকানি ।  ব্যস্ত-ক্লান্ত শহর তুমি এসে কুড়িয়ে নিও পথের পাশে দুখানি বিশ্রামফুল ।

 

 সেসব কবেকার লুকিয়ে লেখা উড়ন্ত চিঠি এখনও  হাওয়ায় ভেসে আসে  মাঝে মাঝে চাতালে জমা শেওলায় ভ্রামরী গায়  রনি আর বনি দুভাই ক্ষরণের ভুলচুক লিখে রাখা সম্পর্কের গোপন ফসিল সহজেই জায়গা করে নেয় ছোট পরিবার সুখী পরিবারে। গৃহস্থ দেরাজের ত্রিভুজহ্যাংগারে ভূমির সমান্তরাল বাহুতে বেনারসি শাড়ি ফেলে রাখা  বাকি দুবাহু ন্যাপথালিনের গন্ধ মেখে ঝুলে থাকে রনি আর বনি হয়ে  এখানে আন্দোলনের নাম ভাদ্রমাস 

 

ভুল করে বেজে উঠলে ভুলে বিসরে গীত বসন্ত পরিব্রাজক হয় মনের উঠোনে  যেন স্বল্প দৈর্ঘ্যের ছায়াছবি নির্মাণ হল অপরূপ একটি দৃশ্যে    কয়েকটি ছুঁয়ে থাকার মুহূর্ত পরপর তালি দিয়ে চলে ছায়াছবি নির্মাণ  ভাঁজে ভাঁজে খুলে যায় গান  ছায়াপথ ধরে জখম লুকিয়ে যায়  এরকম শেষ থেকে শুরু হওয়া ছবিতে কখনও  ‘দি এন্ড’ লেখা হয় না   

মন্তব্য করুন



আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বসত্ব সংরক্ষিত