| 13 এপ্রিল 2024
Categories
শিশু-কিশোর কলধ্বনি

তিনটি ছড়া

আনুমানিক পঠনকাল: < 1 মিনিট

 

স্বপ্নঘুড়ি

উড়ছে ঘুড়ি স্বপ্নপুরী
হাওয়ায় চেপে
ঐ আকাশে হেঁচকা টানে
উঠলো কেঁপে!

নাটাই-সুতোর বাঁধন যখন
ছিটকে পড়ে
স্বপ্নে খোকার দু’চোখ বেয়ে
কান্না ঝরে!

খোকার ঘুড়ি মেঘের দেশে
বেড়ায় হেসে
তবুও খোকা স্বপ্ন দেখে
ভালোবেসে।

স্বপ্ন যখন ভাঙলো খোকার
বিকেল বেলা
বললো খোকা ভাল্লাগে না
অমন খেলা!

 

স্বপ্ন আমার আকাশ কুসুম

এমন আজব স্বপ্ন কী রে?
হয় কখনও সত্যরে
মতিঝিলের শাপলা ভাসে
ঢাকার দোয়েল চত্বরে।

দোয়েল পাখি প্রাণের ভয়ে
পাখনা মেলে যাচ্ছে উড়ে
গুলিস্তানের নষ্ট কামান
হঠাৎ দেখি গুল্লি ছুঁড়ে!

দুরন্ত এক রুগ্ন ছেলের
মুর্তিও যে কথা বলে
শাহবাগের শান্ত মিশুক
রাস্তা ছেড়ে যাচ্ছে চলে!

মতিঝিলের শ্বেত বলাকা
জ্যান্ত হয়ে মাছটা গিলে
ফার্মগেটের রুই-কাতলার
তাইনা দেখে চমকে পিলে!

ভার্সিটির ওই মূর্তিগুলো
অস্ত্র হাতে আসছে ধেয়ে
শহীদমিনার এই কথাটা
বললো ডেকে আমায় পেয়ে!

রায়ের বাজার বধ্যভূমির
কজন শহীদ অট্টহাসে
আকাশ কুসুম স্বপ্ন আমার
চোখের পাতায় অমনি ভাসে।

 

 

বড়ো হবার ভাবনা যত
দু’চোখ ভরে দেখতে পারি,থাকলে রবির আলো
চশমা পরে দেখতে শহর,আর লাগেনা ভালো!
শহর ছেড়ে কোথায় যাবো? ভাবছি বসে একা
অট্টালিকার ভীড়ে জানো? যায় না আকাশ দেখা
তোমার ছেলের ভাগ্যে মাগো, কী আছে যে লেখা! 
কোথায় আছে গঙ্গা ফড়িং? ফুল পাখি নদ নদী
আমিও ছবি আঁকতে পারি, ওসব পেতাম যদি। 
তালগাছের ওই মাথার উপর ঘুড্ডি কী মা উড়ে? 
ওই দেখো না মোবাইল টাওয়ার একটু খানি দূরে! 
বললো বাবা,মোবাইল গেমই খাচ্ছে মাথা খুঁড়ে! 
ছাদবাগানে ফুলের টবে, হচ্ছে ফুলের চাষ
মাছের বাড়ি অ্যাকুরিয়াম-বন্দি বসবাস! 
কলিংবেলও সুইচ দিলে পাখির মত  ডাকে
বড়ো হবার ভাবনা যত মনের ভেতর থাকে! 
ওসব কথা ভাবছি কেন পড়ার ফাঁকে-ফাঁকে? 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: সর্বসত্ব সংরক্ষিত