| 5 মার্চ 2024
Categories
জীবন যাপন রান্নাঘর

চার পদের নিরামিষ

আনুমানিক পঠনকাল: 3 মিনিট

 

রান্না ঘরের চৌহদ্দি সামলানোই নারীদের একমাত্র কাজ নয়। ঘর সামলানো আর দেশ সামানোর মধ্যে খুব একটা তফাৎ নেই। রান্নাটা একটা শিল্প খুব মনোযোগ দিয়ে যত্ন নিয়ে করতে হয় তবেই খেতে বসে প্রশান্তি আসে। কথাগুলো ষাট-পয়ষট্টি পেরুনো জয়ন্তী রায়ের। তিনি ইরাবতীর জন্যে দিয়েছেন চারটি বাঙালির মুখরোচক নিরামিষ রান্নার রেসিপি।


 শুক্তো

………………….

উপকরণঃ করলা বা উচ্ছে ২টা চাক চাক করে কাটা, আলু মাঝারি আকারের ২টা ছোট ছোট কিউব করে কাটা, কলা ১টা ছোট ছোট কিউব কওে কাটা, বেগুন দেড়টা ছোট ছোট কিউব করে কাটা, ডাটা এক ইঞ্চি লম্বা পাতলা করে কাটা এক কাপ।
মশলাঃ রাঁধুনি আধা চা চামচ, তেজপাতা ১-২ টা, আদা বাটা ১ চা চামচ, জিরা বাটা ১ চা চামচ, তেল, লবন, হলুদগুড়ো পরিমান মত।

রান্নার প্রণালিঃ প্রথমে চুলায় কড়াই গরম হলে পরিমানমত তেল গরম করে নিতে হবে তাতে তেজপাতা ফোঁড়ন দিতে হবে। তেলে তেজপাতা পুড়লে রাঁধুনি ছেড়ে দিতে হবে তারপর কেটে রাখা করলা বা উচ্ছে ছেড়ে দিয়ে একটু ভাজতে হবে সেইসাথে এক দু’চিমটি হলুদ, স্বাদমত লবন দিয়ে নাড়াচাড়া করতে হবে একটু ভাজা ভাজা হয়ে এলে বাকি মশলা এবং কেটে ধুয়ে রাখা সবজি গুলোও দিয়ে দিতে হবে আরো কিছুক্ষন মশলায় ভেজে নিয়ে তিন কাপ জল দিয়ে ঢাকা দিয়ে দিতে হবে। রান্না ফুটে উঠলে ঢাকনা সরিয়ে আরো কিছুক্ষন তাপে রেখে মাখোমাখো হয়ে এলে নামিয়ে নিতে হবে।

শাক পিঠালি

……………………………….

উপকরণঃ কলমি, কলাই বা মুলো শাক দিয়ে এই রান্নাটি করা যায়।

প্রথমে কলমি, মুলো বা কলাইয়ের দুই আঁটি শাক বেছে ধুয়ে নিতে হবে। এরপর বঁটিতে মিহি করে কুঁচিয়ে নিতে হবে।

মশলাঃ রাঁধুনি আধা চা চামচ, তেজপাতা ১-২ টা, আদা বাটা ১ চা চামচ, জিরা বাটা ১ চা চামচ, কাঁচা মরিচ ৪-৫টা, তেল, লবন, হলুদগুড়ো পরিমান মত এবং ২ টেবিল চামচ চালের গোলা গুড়ো।

রান্নার প্রণালিঃ কড়াইতে তেল দিয়ে তেজপাতা ফোঁড়ন দিয়ে তাতে কুচানো শাক ছেড়ে ভালো করে ভাজতে হবে। শাকটা মিইয়ে আসলে আদা বাটা, জিরা বাটা, কাঁচা মরিচ এবং পরিমানমত হলুদ, লবন দিয়ে আরো কিছু সময় ভেজে দেড় কাপ জল দিয়ে ধেকে দিতে হবে। শাকটা সেদ্ধ হয়ে এলে চালের গুড়োর গোলা দিয়ে শাকের সাথে ভালো কওে মিশিয়ে নিতে হবে। রান্নায় আঠালো ভাব এলেই নামিয়ে নিতে হবে।

বিঃ দ্রঃ এই রান্নায় কেউ চাইলে কুঁচো চিংড়ি, টাকি বা যেকোন মাছের মাথা দিয়েও করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে মাছ বা মাথা রান্নার শুরুতেই ভেজে নামিয়ে রাখতে হবে এবং মশলা দিয়ে শাক ভাজার সময় দিয়ে দিতে হবে।

লাউ বেসুরি

………………………

উপকরণঃ কুচানো লাউ ৫-৬ কাপ

মশলাঃ তেজপাতা ১-২ টা, শুকনো মরিচ ২টা, সরিষাবাটা ২ চা চামচ, কাঁচা মরিচ ৫-৬টা, আদা বাটা ১ চা চামচ, জিরা বাটা ১ চা চামচ, তেল, লবন, হলুদগুড়ো পরিমান মত।


রান্নার প্রণালিঃ কড়াইয়ে পরিমানমত তেল গরম হয়ে এলে তেজপাতা, শুকনো মরিচ ফোঁড়ন দিতে হবে তারপর কুচানো লাউ ছেড়ে দিয়ে একে একে সরিষা বাটা, আদাবাটা, জিরা বাটা, কাঁচা মরিচসহ সমস্ত মশলা দিয়ে ভালো করে ভেজে নিতে হবে। কিছুক্ষন ভাজার ফলে লাউ মিয়ে এসে জল ছেড়ে দিলে আরো এক কাপ জল দিয়ে ঢাকা দিতে হবে। কিছুক্ষণ পর ঢাকনা তুলে জল শুকিয়ে এল নামিয়ে নিতে হবে।

শিমের নাড়াচাড়া

…………………………….

উপকরণঃ আধা কেজি বিচিওলা শিম এবং দু’টুকরো করে কাটা গুড়ো আলু এক কাপ।

মশলাঃ কালোজিরা ১ চা চামচ, কাঁচা মরিচ ৫-৬ টা, রসুনের কোয়া ২টা, আদা বাটা ১ চা চামচ, জিরা বাটা ১ চা চামচ, তেল, লবন, হলুদগুড়ো পরিমান মত।


রান্নার প্রণালিঃ গরম তেলে কালোজিরা ফোঁড়ন দিয়ে শিম, আলু একসঙ্গে দিয়ে নাড়তে হবে। নাড়তে নাড়তেই আদা বাটা, জিরা বাট, রসুনের কোয়া, তেল, লবন, হলুদ গুঁড়ো দিয়ে আরো কিছুক্ষণ নেড়ে দুই কাপ জল দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। শিম আলু সেদ্ধ হয়ে জল শুকিয়ে গেলে বেশ করে নেড়ে আধা ভাঙা হয়ে গেলে নামিয়ে নিতে হবে।

 

 

 

 

One thought on “চার পদের নিরামিষ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: সর্বসত্ব সংরক্ষিত